আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নেদারল্যান্ডসের হেগে অবস্থিত আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান ঘোষণা করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

আজ সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় দুপুরের দিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন এ ঘোষণা দেবেন।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়া শুরু করলে আন্তর্জাতিক আদালতের বিচারপতিদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকিও দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে।

১৯৯৭ সালের ১৭ জুলাই রোম স্ট্যাচু গৃহীত হয়। এ নীতিমালা অনুযায়ী আন্তর্জাতিক আদালত গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে রোম স্ট্যাচু কার্যকর করতে ১২০টি দেশের স্বীকৃতির প্রয়োজন ছিল। ১২০ দেশের স্বীকৃতির পর ২০০২ সালের ১ জুলাই থেকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত তার কার্যক্রম শুরু করে। যুক্তরাষ্ট্র এ আদালতকে স্বীকৃতি দেয়নি।

আজ  সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) ওয়াশিংটনে রক্ষণশীল গোষ্ঠী ফেডারেলিস্ট সোসাইটিতে বক্তব্য রাখবেন ট্রাম্পের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন। হোয়াইট হাউসে যোগদানের পর এটাই তার প্রথম বড় ধরনের বক্তৃতা। এরইমধ্যে বোল্টনের বক্তব্যের খসড়া লিপি হাতে পাওয়ার দাবি করেছে রয়টার্স। এর ভিত্তিতে রয়টার্স জানিয়েছে, সোমবারের বক্তব্যে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর অবস্থান ঘোষণা করবেন বোল্টন।

আরো পড়ুন>>> সোমালিয়ায় সরকারি ভবনে আত্মঘাতী হামলা

বোল্টনের বক্তব্যের খসড়া থেকে আরও জানা গেছে, আফগানিস্তান যুদ্ধে মার্কিন নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক যুদ্ধাপরাধ সংঘটনের অভিযোগ নিয়ে অপরাধ আদালত যদি আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরু করে তবে ট্রাম্প প্রশাসন এর বিরুদ্ধে জবাব দেবে। এ ধরনের তদন্ত শুরু হলে, বিচারপতি ও প্রসিকিউটরদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা ভাবা হবে।

উল্লেখ্য, নাইন ইলেভেনের হামলার পর ২০০১ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের নির্দেশে আফগানিস্তানে মার্কিন অভিযান শুরু হয়। আনুষ্ঠানিকভাবে আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ অভিযান শেষ হয় ২০১৪ সালে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনী এখনও আফগান সেনাদের সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।

 

স্বাআলো/আরবিএ