প্রধানমন্ত্রীকে আল্লামা শফীর আহ্বান

প্রধানমন্ত্রীকে আল্লামা শফীর আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা : দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফী শান্তিপূর্ণভাবে ফিতনামুক্ত বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি ২৮ নভেম্বর গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনাকে বলতে চাই, দাওয়াত ও তাবলিগ একটি দ্বীনি কাফেলা। যেখানে সব বয়সের লোকদের দ্বীন শেখার ব্যবস্থা রয়েছে। দ্বীন শেখার এ মহতি কাজের জন্যই আপনার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশাল ময়দান দিয়েছেন। কল্যাণকর কাজের ব্যবস্থাকারী সাদকায়ে জারিয়ার কল্যাণ লাভ করেন। ইসলামি শরিয়তে সে কাজকে সাদকায়ে জারিয়া বলা হয়।

গত বছর সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় যেভাবে জোড় ও বিশ্ব ইজতেমা সুন্দর ও ফিতনামুক্তভাবে আলেমদের তত্ত্বাবধানে সফলভাবে আয়োজন হয়েছিলো, এ বছরও সেভাবে ফিতনামুক্ত ইজতেমা আলেমদের তত্ত্বাবধানে সম্পন্ন করার বিষয়ে আপনার সহযোগিতা বিশেষভাবে কামনা করছি।

বঙ্গবন্ধুর দেয়া টঙ্গীর মাঠে নবি-রাসুলদের সমালোচনাকারী মাওলানা সাদপন্থি ওয়াসিফুল ইসলামগংদের কোনো ধরনের জোড় ও প্রোগ্রাম করার অধিকার থাকতে পারে না এবং তারা তা করতেও পারবে না।

বিশ্ব ইজতেমার আগে প্রস্তুতি গ্রহণে টঙ্গির ইজতেমা মাঠে ৫দিন ব্যাপী জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্য বছরের মতো এ বছর ওলামা ও কাকরাইল মারকাজের মুরব্বিদের আয়োজনে আগামী ৭ ডিসেম্বর  ৫দিন ব্যাপী এ জোড় অনুষ্ঠিত হবে।

২০১৯ সালের বিশ্ব ইজতেমাকে সফল করার লক্ষ্যে ৭ ডিসেম্বর জোড় শুরু হয়ে শেষ হবে ১১ ডিসেম্বর  আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে।

এবার টঙ্গির বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব ১৮, ১৯ ও ২০ জানুয়ারি এবং দ্বিতীয় পর্ব ২৫, ২৬ ও ২৭ তারিখ অনুষ্ঠিত হবে। কাকরাইল মারকাজের মুরব্বি ও ওলামাগণ সরকারের সঙ্গে পরামর্শক্রমে এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

স্বাআলো/বিএস