দিনাজপুরে ছিটমহলেও জমে উঠেছে নির্বাচনী উৎসব

ছিট মহলের কয়েক হাজার নতুন ভোটার।

জেলা প্রতিনিধি, দিনাজপুর : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন পঞ্চগড় জেলার বিলুপ্ত ৩৬ ছিট মহলের কয়েক হাজার নতুন ভোটার। দেশের মূল ভূখণ্ডে যুক্ত হওয়ায় প্রায় ৭০ বছর পর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেবেন তারা।

দেশের অন্যান্য সাধারণ নাগরিকের মতো বিলুপ্ত ছিটমহলের এসব মানুষও ভোট দিতে যাবেন। এজন্য এলাকার সকল নারী-পুরুষের মাঝে দেখা গেছে উৎসবের আমেজ।

১৯৭৪ সালে তৎকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর চুক্তির আলোকে ভারত বাংলাদেশের মধ্যে ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই মধ্যরাতে ১১১টি ছিটমহল বিনিময়ের কাজ চূড়ান্ত হয়।

দীর্ঘ ৬৮ বছর পর পঞ্চগড়ের ৩৬টি ছিটমহল বাংলাদেশের সাথে অন্তর্ভুক্ত হয়। বিলুপ্ত ছিটমহলের কয়েক হাজার মানুষ পায় বাংলাদেশের নাগরিকত্ব।
পঞ্চগড় জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড়-১ আসনে ৭টি ছিটমহলে ১ হাজার ২৫ জন নতুন ভোটার। এদের মধ্যে নারী ভোটার ৪৯৮ ও পুরুষ ভোটার ৫২৭ জন।

এছাড়া, পঞ্চগড়-২ আসনে ২১টি বিলুপ্ত ছিটমহলে রয়েছেন ৬ হাজার ২২০ জন নতুন ভোটার। এদের মধ্যে পুরুষ ৩ হাজার ২৭৫ জন ও নারী ভোটার ২ হাজার ৯৪৫ জন। পঞ্চগড় জেলার মোট ৩৬টি বিলুপ্ত ছিটমহলের নতুন ভোটার সংখ্যা ৮ হাজার ৯৩৫ জন।
গারাতী ছিটমহল গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দা বাবুল আক্তার সারাবাংলাকে জানান, আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি ২০১৫ সালের ১৩ জুলাই।

আরো পড়ুন>>> স্বাধীনতা অর্জনের পথে মুসলিম জনপদ ‘বাংসামোরো’

আমাদের কোনো দেশ বা পরিচয় ছিলনা। বাংলাদেশের নাগরিকত্ব পেয়ে ভোটার হয়েছি। আর মাত্র কদিন পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেব। খুবই আনন্দ লাগছে। বর্তমান সরকারের হস্তক্ষেপে আমরা দেশ পেয়েছি। বর্তমান সরকারের আন্তরিকতায় বিভিন্ন উন্নয়নের কাজ হয়েছে। ছিটমহলে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। রাস্তাঘাট, কালভার্ট নির্মাণসহ ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে বিদ্যুৎ।

তিনি জানান, আমাদের ছেলে-মেয়েরা খুব কষ্ট করে পড়াশুনা করছে। আমাদের ছিটমহলবাসীদের জন্য চিকিৎসা কেন্দ্র, শিক্ষার জন্য স্কুল-কলেজসহ জীবনমান উন্নয়নের জন্য যে কাজ করবে তাকেই ভোট দিব।

বিলুপ্ত শালবাড়ি ছিটমহলের বাসিন্দা আকবর হোসেন বলেন, আমরা ভোট দেওয়ার জন্য অধীর আগ্রহে দিনক্ষণ গুনছি। ভোট দিতে যাবো খুবই আনন্দ লাগছে। তবে যে আমাদের এলাকার উন্নয়ন করবে, সুখে দুঃখে পাশে থাকবে, অবহেলিত নারীদের কথা বলবে, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিসে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে এমন প্রার্থীকে আমরা বেছে নেবো। এতদিন বাংলাদেশের নির্বাচনের ভোট উৎসব দেখেছি।

কিন্তু এবার এই উৎসব পালন করব। দীর্ঘ অপেক্ষায় ৩০ ডিসেম্বরের জন্য আছি আমরা।
পঞ্চগড় জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল আলম জানান, পঞ্চগড়-১ আসনে ৭টি ও পঞ্চগড়-২ আসনে ২৯টি নিয়ে মোট ৩৬টি ছিটমহল রয়েছে। দুটি আসনের এসব ছিটমহলে মোট ভোটার ৮ হাজার ৯৩৫ জন ভোটার আগামী ৩০ ডিসেম্বর তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এসব ভোটারদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪ হাজার ৬৭৪ জন ও নারী ভোটার ৪ হাজার ২৬১ জন। এসব নতুন বাংলাদেশিরা এবারই প্রথম ভোট দেবেন। তাদের মধ্যে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

স্বাআলো/আরিফ