রংপুরকে হারিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা

রংপুরকে হারিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা

ক্রীড়া ডেস্ক : বিপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে মুখোমুখি হয় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। রংপুরকে ৮ উইকেটে হারিয়ে কুমিল্লা সরাসরি চলে গেল ফাইনালে। রংপুরকে খেলতে হবে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচ। যেখানে অপেক্ষা করছে মুশফিকের চিটাগংকে হারিয়ে দেওয়া সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটস।

সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ইমরুল কায়েসের কুমিল্লার বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় মাশরাফির রংপুর। নির্ধারিত ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে রাইডার্সরা তোলে ১৬৫ রান। জবাবে, কুমিল্লা ১৮.৫ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে তোলে ১৬৬ রান। দিনের আগের ম্যাচে মুশফিকের চিটাগংকে ৬ উইকেটে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের টিকিট কেটেছে সাকিবের ঢাকা।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি রংপুরের। শেষ ৫ ওভারে ৭৪ রান তুলে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে রংপুর। তার আগে ব্যক্তিগত ১ রানে ওপেনার মেহেদি মারুফ এবং তিন নম্বরে নামা মোহাম্মদ মিঠুন ৩ রান করে বিদায় নেন। এক প্রান্তে থেকে আরেক ওপেনার ক্রিস গেইল করেন ৪৬ রান। ক্যারিবীয়ান এই হার্ডহিটারের ৪৪ বলে সাজানো ইনিংসে ছিল ৬টি চার আর একটি ছক্কা। মাঝে রবি বোপারা ৩ রান করে বিদায় নেন।

এরপর জুটি গড়েন রিলে রুশো এবং বেনি হাওয়েল। এই জুটিতে ৪০ বলে আসে ৭০ রান। ইনিংসের ১৯তম ওভারে তুলে মারতে গিয়ে বিদায় নেন রুশো। তার আগে চারটি চার আর দুটি ছক্কায় ৩১ বলে করেন ৪৪ রান। ওয়াহাব রিয়াজের শেষ ওভারে ১৮ রান তুলে নেন বেনি হাওয়েল এবং নাহিদুল ইসলাম। হাওয়েল ২৭ বলে ফিফটি পূর্ণ করেন। তার ২৮ বলের ইনিংসে ছিল ৩টি চার আর ৫টি ছক্কার মার। ৫৩ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। নাহিদুল ৩ বলে ৬ রান করে অপরাজিত থাকেন।

কুমিল্লার মেহেদি হাসান ৪ ওভারে ২৮ রান দিয়ে পান একটি উইকেট। সঞ্জিত সাহা ৪ ওভারে ১৪ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট। ৪ ওভারে ৪২ রান দিয়ে একটি উইকেট পান সাইফউদ্দিন। শহীদ আফ্রিদি ৩ ওভারে ১৯ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। থিসারা পেরেরা ১ ওভারে ৭ রান দিয়ে উইকেট পাননি। ওয়াহাব রিয়াজ ৪ ওভারে ৪৯ রান খরচায় তুলে নেন একটি উইকেট।

১৬৬ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে কুমিল্লার ওপেনার তামিম ইকবাল-এভিন লুইস তুলে নেন ৩৫ রান। ১৪ বলে একটি করে চার ও ছক্কায় ১৭ রান করে বিদায় নেন তামিম। তিন নম্বরে নামা এনামুল হক বিজয় ৩২ বলে দুটি করে চার ও ছক্কায় করেন ৩৯ রান। এরপর আর কোনো উইকেট যায়নি। ওপেনার এভিন লুইস ৫৩ বলে ৫টি চার আর তিনটি ছক্কায় ৭১ রান করে অপরাজিত থাকেন। শামসুর রহমান ১৫ বলে চারটি চার আর দুটি ছক্কায় করেন অপরাজিত ৩৪ রান।

রংপুরের দলপতি মাশরাফি ৪ ওভারে ৪৩ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট। ফরহাদ রেজা ২.৫ ওভারে ২৯ রান, নাহিদুল ইসলাম ৩ ওভারে ১৮, সোহাগ গাজী ২ ওভারে ১৫, রবি বোপারা ২ ওভারে ২০ রান, বেনি হাওয়েল ২ ওভারে ১৯ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। শফিউল ইসলাম ৩ ওভারে ২১ রান দিয়ে বাকি একটি উইকেট পান।

স্বাআলো/এম