ইলিশে ভাগ বসাতে ভারতের ‘নতুন কৌশল’

ইলিশের উৎপাদন বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা: ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে বাংলাদেশের সরকার প্রতিবছর নিচ্ছে নানা ব্যবস্থা। সর্বশেষ ২০১৮’র ৭ অক্টোবর হতে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ছিল ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম। এসময় ডিম নদীতে ছাড়ার সুযোগ দেবার জন্য ইলিশ ধরা ছিল নিষিদ্ধ।

এদিকে বাংলাদেশের ইলিশে ভাগ বসাতে নতুন কৌশল অবলম্বন করার কথা ভাবছে ভারত। এ কারণে ‘নেভিগেশন লক’ নামে একটি বিশেষ ইলিশ করিডোর তৈরি করেছে ভারত। ফারাক্কা দিয়ে বাংলাদেশের পদ্মার ইলিশ নিতে নতুন এই কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। শনিবার ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’য় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একটি বিশেষ ইলিশ করিডোর তৈরি করেছে ভারত। এর নাম ‘নেভিগেশন লক’। চলতি বছরের জুন মাস নাগাদ প্রকল্পটি চালু হবে। ৩৬১ কোটি রুপি ব্যয়ে প্রকল্পটিতে বর্ষা মৌসুমসহ ইলিশ প্রজননের তিন মৌসুমে যাতে ভারতে জাটকা ঢুকতে পারে, সে লক্ষ্যে বিশেষ লক সিস্টেম তৈরি করা হয়েছে।

আরো পড়ুন>>> ভোলার ইলিশা বাজারে আগুনে পুড়লো ৪০টি দোকান

ইলিশের প্রজনন মৌসুমে রাত একটা থেকে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত আট মিটার গেট খুলে দেওয়া হবে, যাতে জাটকা ভারতে ঢুকতে পারে। কারণ ওই সময়ে জাটকা বিচরণ করে। এই প্রকল্প চালু হলে ৪০ বছর পর আসন্ন বর্ষার মৌসুমে ফের ফারাক্কা দিয়ে এলাহাবাদের গঙ্গায় ঢুকতে পারবে ইলিশ।

প্রতিবেদনটি বলছে, ফারাক্কা ব্যারেজ তৈরি হওয়ার আগে ফারাক্কা দিয়ে ভারতের গঙ্গা হয়ে এলাহাবাদে ধরা পড়তো বাংলাদেশের ইলিশ। কিন্তু ব্যারেজটির নেভিগেশন লকের কারণে ইলিশ এলাহাবাদ পর্যন্ত যেতে পারতো না। সম্প্রতি লকটি রিডিজাইন করা হয়েছে। ফলে প্রজনন মৌসুমে ইলিশের যাতায়াতে বাধা থাকবে না।

স্বাআলো/এসএ