পদ্মায় জেলেদের জালে মিলল মিঠা পানির কুমির

পাবনা সদর উপজেলার ভাঁড়ারায় পদ্মা নদীতে আবারো  বিলুপ্ত প্রজাতির একটি মিঠা পানির কুমির ধরা পড়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে জেলেদের জালে কুমিরটি ধরা পড়ে।

ডেস্ক রিপোর্ট: পাবনা সদর উপজেলার ভাঁড়ারায় পদ্মা নদীতে বিলুপ্ত প্রজাতির একটি মিঠা পানির কুমির ধরা পড়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে জেলেদের জালে কুমিরটি ধরা পড়ে।

পরে, রাজশাহী থেকে বনবিভাগের উদ্ধারকারী দল কুমিরটিকে নিয়ে যায়।

এর আগে পাবনার দোগাছি ইউনিয়নের চরকোমরপুর এলাকায় পদ্মা নদীতে গত ডিসেম্বর মাসে মিঠা পানির বিলুপ্ত প্রজাতির একটি কুমির শনাক্ত করে বনবিভাগ।

তবে, মঙ্গলবার ধরা পড়া কুমিরটি আগের কুমিরের চেয়ে আকারে ছোট।

পাবনা ভাঁড়ারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ খান জানান, গত কয়েকদিন ধরে ভাঁড়ারা ইউনিয়নের দড়িভাউডাঙা গ্রামে পদ্মা নদীর কোলে একটি বড় আকারের কুমির দেখতে পান গ্রামবাসী।

আরো পড়ুন>>>পদ্মা সেতুর ৯০০ মিটার দৃশ্যমান

পাবনা জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন বলেন, স্থানীয়দের নিকট থেকে খবর পেয়ে আমরা বনবিভাগের মাধ্যমে কুমিরটি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিই।

তিনি বলেন, বনবিভাগের কর্মীরা উদ্ধার হওয়া কুমিরটির চিকিৎসা করছেন। এটি বিলুপ্ত প্রজাতির কুমির। ঢাকায় নিয়ে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তবে, চরকোমরপুরে দেখা পাওয়া কুমিরটি নয় বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক।

চরকোমরপুরে পদ্মা নদীতে আটকে পড়া কুমিরটিকে এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, খবর পেয়ে আমরাও ভাঁড়ারা এলাকায় গিয়েছি। তবে এখানকার মানুষ কুমিরটিকে হত্যা না করে, সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। জলজ ও বন্য প্রাণী সংরক্ষণে এভাবে সবাই সচেতন হলে, প্রজাতির বৈচিত্র্য টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে।

স্বাআলো/আরবিএ