সড়ক দুর্ঘটনায়  একই পরিবারের নিহত ২ জনের দাফন সম্পন্ন

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত মণিরামপুরের মাছনা গ্রামের একই পরিবারের নিহত ফাতেমা বেগম ও তার ভাইপো রাফিদ হাসানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

আজ শুক্রবার জুম্মাবাদ ও আছরবাদ পৃথক নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক করবস্থানে তাদেরকে দাফন করা হয়।

একই পরিবারের ২ জনের মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে না কোন মতেই।

নিহত ফাতেমা (৩৮) মাছনা গ্রামের আব্দুর বারী সরদারের মেয়ে এবং রাফিদ হাসান (৮) ফাতেমার ভাই আব্দুর রহমানের ছেলে।

আরো পড়ুন>> মণিরামপুর উপজেলা নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ

নিহত ফাতেমার ভাই মাও. রফিকুল ইসলাম বলেন, বৃহম্পতিবার বিকেল বাসযোগে তার বড় বোন নুরুন্নাহারের সিরাসসুনি গ্রামে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে নিহত ফাতেমা বেগম ও তার মেয়ে তৃপ্তি খাতুন (১৭), ভাই আব্দুর রহমান ও তার স্ত্রী শিরিনা খাতুন, মেয়ে তামান্না খাতুন (১৮), নিহত ছেলে রাফিদ হাসান চুকনগর নামেন। সেখান থেকে ঘুষনা  গ্রামের আরব আলীর ইঞ্জিন চালিত ভ্যানযোগে বোনের বাড়িতে যাওয়ার পথে চুকনগর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের কাঞ্চনপুর নামক স্থানে সড়কের উপর  ভ্যানের এ্যক্সেল ভেঙ্গে পড়ে যায়।

এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা খুলনা মেট্রো জ-০৪-০০৫৫ নম্বরধারী বাস ভ্যানটিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই ফাতেমা নিহত হন। এসময় তামান্না ও তৃপ্তি ছাড়া ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা বাকিদের গুরুত্বর আহত অবস্থায় খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। এদের মধ্যে রাফিদ হাসানকে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষনা করেন।

চুকনগর ফাঁড়ি পুলিশ বাসটিকে আটক করলেও চালক পালিয়ে যায়।

চুকনগর ফাঁড়ি পুলিশের এএসআই হুমায়ন কবীর জানান, বাসটি ফাঁড়িতে আটক আছে।

স্বাআলো/এম