ভোটের মাঠেও আলোচনায় দুই নায়কা

ভোটের মাঠেও আলোচনায় দুই নায়কা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের লোকসভা নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচনী প্রচারে এক ভিন্ন আমেজ নিয়ে এসেছেন দেশটির চলচ্চিত্র তারকরা। মিমি চক্রবর্তী ও নুসরাত জাহান কলকাতার এই দুই জনপ্রিয় অভিনেত্রী এবার তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে ভোটের লড়াইয়ে নেমেছেন।

২০১৪ সালের মতো এবারও এক ঝাঁক তারকার উপস্থিতিতে সরগরম ভারতের নির্বাচনী প্রচার। এই প্রচারে যেমন মুম্বাইয়ের ‘বলিউড’-এর খ্যাতনামা তারকারা আছেন, তেমনি বাঙালির মাঝে আগ্রহ তৈরি করেছেন কলকাতার ‘টালিউড’-এর তারকারা।

শুক্রবার কলকাতার নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায় মানুষজনের মুখে মুখে ছিলও সেই আলোচনারই প্রতিধ্বনি।

প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় নামের একজন বলেন, বাংলাদেশ থেকে এসেছেন নির্বাচনের খবর সংগ্রহ করতে। বেশ তো! আপনি যাদবপুর যান দেখবেন প্রচারণা কেমন সরগরম। কারণটি কি জানেন? মিমি চট্টোপাধ্যায় লড়ছেন। সেলিব্রেটি বলেই কথা!

তৃণমূল বলুন, বিজেপি বলুন, কংগ্রেস বলুন কিংবা বাম ফ্রন্টই বলুন যে কোনো মঞ্চেই তাদের নিয়ে আসা হয় জনপ্রিয়তাকে লক্ষ রেখেই।

নির্বাচনে যাদবপুরে প্রার্থী হয়েছেন বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় মুখ মিমি চক্রবর্তী। পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস থেকে লড়ছেন তিনি।

তার মতো আরেক জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত জাহানও নির্বাচনে লড়ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে। চব্বিশ পরগণার বসিরহাটে প্রার্থী হওয়া নুসরাত আগে কখনও রাজনীতিতে সম্পৃক্ত না হলেও ভোটের মাঠে তিনি কম যাচ্ছেন না।

মিমি ও নুসরাতের আসনে ভোটগ্রহণ হবে ১৯ মে, ভারতের পঞ্চম ধাপের ভোটের শেষ দিনে।

মিমি ও নুসরাত ছাড়াও পশ্চিম মেদিনিপুরের ঘাটাইল আসনে দেব, আসানসোল আসনে মুনমুন সেন, বীরভূম আসনে শতাব্দী রায়, হুগলিতে লকেট চট্টোপাধ্যায়, হাওড়া আসনে জর্জ বেকার, চন্ডিগড় আসনে কিরন খের ও গুল পানাং প্রমুখ তারাকারা ভোট করছেন।

আরো পড়ুন>>> ভোটের মাঠে মিমির ‘প্রতিপক্ষ’ শ্রাবন্তী

সঙ্গীত শিল্পীদের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের শ্রীপুর আসনে বাপ্পী লাহিড়ী, বহরমপুর আসনে ইন্দ্রনীল সেন, মালদহ আসনে সৌমিত্র রায়, আসনসোল আসনে বাবুল সুপ্রিয় রয়েছেন ভোটের লড়াইয়ে।

পাঁচ বছর আগে লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে অভিনেতা দেব (দীপক অধিকারী), অভিনেত্রী মুনমুন সেন, সন্ধ্যা রায়, শতাব্দী রায় ও তাপস পাল বিজয়ী হয়ে সংসদে যান।

কলকাতা বিমানবন্দরে ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষার মধ্যে নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন দুজন কলকাতা বিমানবন্দরে ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষার মধ্যে নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন দুজন ভারতের রাজনীতির অঙ্গনে প্রথম রূপালী পর্দার তারকাদের নিয়ে আসে কংগ্রেস। পরবর্তীতে অন্য দলগুলোও সেই পথ অনুসরণ করে। উত্তর থেকে দক্ষিণ ভারতে গত কয়েক দশকে চলচ্চিত্র জগতের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের রাজনীতিতে আগমন ক্রমশ বাড়ছে। অমিতাভ বচ্চন থেকে শত্রুঘ্ন সিনহা কিংবা জয়ললিতা থেকে হেমামালিনী, জয়া প্রদা থেকে শুরু করে অনেকে যোগ দিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গে এই প্রবণতা দীর্ঘদিন দেখা না গেলেও গত এক দশকে এই চিত্রটা একেবারে বদলে গেছে তৃণমূল কংগ্রেসের হাত ধরে।

রুপালী পর্দার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মধ্যে ভোটে রয়েছেন অন্ধ্রপ্রদেশের মথুরা আসনে হেমামালিনী, উত্তর প্রদেশের গজিয়াবাদ আসনে রাজ বাব্বর, লক্ষ্ণৌ আসনে পুনম সিনহা, রামপুর আসনে জয়া প্রদা, বিহারের পাটনা আসনে শত্রুঘ্ন সিনহা, গুজরাটের পূর্ব আহমেদাবাদ আসনে পরেশ রাওয়াল।

স্বাআলো/এএম