তিনদিনে পাঁচ সন্ত্রাসী হামলায় মুক্তিযোদ্ধা ও নারীসহ ১৫জন আহত

তিনদিনে পাঁচটি সন্ত্রাসী হামলায় মুক্তিযোদ্ধা ও নারীসহ ১৫জন আহত

জেলা প্রতিনিধি, বাগেরহাট : বাগেরহাট সদর, ফকিরহাট, মোল্যাহাট ও মোড়েলগঞ্জে গত ৩ দিনে ৫টি সন্ত্রাসী হামলায় মুক্তিযোদ্ধা, নারীসহ কমপক্ষে ১৫জন আহত হয়েছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাজনৈতিনক অজুহাতে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

হাসপাতাল সুত্র ও পুলিশ জানায়, ফকিরহাট উপজেলার মৌভোগ পশ্চিমপাড়া এলাকায় মঙ্গলবার দুপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ৩ নারীসহ ৮জন আহত হয়েছে। এখানে নাজমুল শেখ নামের একজন মৎস্য ব্যবসায়ী মৌভোগ পশ্চিপাড়ার একটি সড়কের পাশে পিকআপ রেখে মাছ নামানোকে কেন্দ্র করে একই এলাকার হোসেন আলী শেখের সাথে বাকবিতাণ্ডার সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে এদিন বিকেল সাড়ে ৫টায় হোসেন আলী তার ১০/১২ জন সহযোগী নিয়ে দা, লাঠি ও লোহার রড দিয়ে নাজমুল শেখের পরিবারের উপর হামলা চালায়। এসময় ঠেকাতে আসা লোকজনের উপরও তারা হামলা চালায়।  হামলায় মারাত্বক জখম হয়েছে নাজমুল শেখ (৩০), তার ভাই শরিফুল ইসলাম (৩৩) ও তরিকুল শেখ (৩৬), বৃদ্ধা মা শাহিনা বেগম (৬০), রাজ আলী শেখ (৪৫), ও তার মাতা ছামেলা বেগম (৭০), সাইফুল শেখ (৩৫), আছমা বেগম (৩৮)। খবর পেয়ে ফকিরহাট মডেল থানার ওসি আবু জাহিদ শেখর   স্থানীয় মৌভোগ  ফাঁড়ি পুলিশ যৌথভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের  মধ্যে ৫ জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্ত্তি করা হয়েছে। বাকীদের ফকিরহাট হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। যে কোন মুহুর্তে পুনরায় বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে। ওসি আবু জাহিদদ বলেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। আর এ ঘটনায় বুধবার দুপুরে নাজমুলের ভাই শরিফুল ইসলাম থানায় লিখিত আভিযোগ করেছেন। তবে ঘটনার সাথে জড়িতরা আপাতত গা ঢাকা দিয়েছে। তাদেরকে আটকের জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

আরো পড়ুন>> বাগেরহাটে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মঙ্গলবার সকালে মোরেলগঞ্জ উপজেলার জিউধরা ভাইজোড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ হাওলাদার (৭০) কে কুপিয়ে আহত করেছে প্রতিবেশী প্রতিপক্ষরা। এসময় পিতাকে বাঁচাতে এসে ছেলে স্কুল শিক্ষক মশিউর রহমান (৩০) ও ভাতিজা  শাহআলম (৩৫) কে মারপিট করে আহত করা হয়েছে। আহত মুক্তিযোদ্ধাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকী দুইজন কে মোরেলগঞ্জহাসপাতালে ভর্ত্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে মোরেলগঞ্জ থানার ওসি কেএম আজিজুলহক বলেন, বাড়ির যাতায়াত পথের জায়গা নিয়ে বিরোধে প্রতিপক্ষরা এ মারপিট করেছে বলে শুনেছি। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। মোরেলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার  কামরুজ্জামান  খবর পেয়ে আহত মুক্তিযোদ্ধাকে দেখতে হাসপাতালে যান এবং তা চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।

সোমবার রাতে মোল্লাহাট উপজেলার গাংনী এলাকায় ৩ জন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে ধারালো অস্ত্রাঘাতে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। আহতরা হলেন, জাকারিয়া হোসেন (৩৫), ফয়সাল (২১) ও করিম হোসেন (১৭) পুর্ব-শক্রতার জের ধরে একই এলাকা আলম শেখের নেতৃত্বে ৬/৭ জন সন্ত্রাসী  এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আহত ৩ জনকেই ওই রাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় কোন অভিযোগ মোল্লাহাট থানায় হয়নি বলে থানা পুলিশ জানায়।

এ ছাড়া গত রবিবার বিকেলে বাগেরহাট চিতলামারী সড়কের মুনিগঞ্জ সেতুর টোল প্লাজায় সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। এ হামলায় দরিদ্র পরিবারের ৩ জন কর্মচারী আহত হয়ে বাগেরহাট সদর হাসপতালে পড়ে আছে। এর আগের রাতে সদরের বানিয়াগাতি এলাকায় সাদ্দাম হোসেন তরফদার নামের এক যুবক কে বাড়ীর সামনে গিয়ে এলোপাতাড়ী কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দুবৃত্তরা। সে এখন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে জানা গেছে। অথচ, এসব সন্ত্রাসী ঘটনায় অভিযোগ না পাওয়ার অজুহাতে পুলিশ দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছে বলে জনশ্রুতি রয়েছে। আবার সচেতন মানুষরা বলছেন নোংরা রাজনৈতিক কারণে পুলিশ অসহায় অবস্থায় রয়েছে। বিশেষ করে বাগেরহাটের অবস্থা একটু ব্যতিক্রম বলে মনে করছেন অনেকে।

স্বাআলো/এম