খাল থেকে উদ্ধার অজ্ঞাত লাশ বামনার ট্রলি চালক ধলুর

জেলা প্রতিনিধি, পিরোজপুর : মঠবাড়িয়া উপজেলার তুষখালী থেকে মঙ্গলবার উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত লাশ হলো বরগুনা জেলার বামনা উপজেলার অযোধ্যা গ্রামের ধলু হোসেনের (৩৫)। নিহতের বাবা বৃহস্পতিবার মঠবাড়িয়া থানায় এসে লাশের ছবি দেখে লাশ শনাক্ত করেন। তিনি পেশায় একজন ট্রলি চালক ছিলেন। তার স্ত্রী ও তিনটি সন্তান রয়েছে।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার মঠবাড়িয়া উপজেলার তুষখালী ইউনিয়নের ছোট মাছুয়া গ্রাম থেকে রিয়াজ শরীফ (৩২) ও রাশেদা বেগম (৩৫) নামের ২ জনকে আটক করেছে। আটককৃত রিয়াজ শরীফ মঠবাড়িয়া উপজেলার ছোট মাছুয়া গ্রামের জাফর শরীফের ছেলে ও রাশেদা বেগম একই গ্রামের আফজাল শরীফের স্ত্রী

নিহতের বাবা আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, দীর্ঘদিন ধরে ধলু ট্রলি চালানোর সূত্র ধরে মঠবাড়িয়ার তুষখালীতে মালামাল পরিবহন করে আসছিল। গত রবিবার পাওনা টাকা আনার কথা বলে মঠবাড়িয়ার তুষখালী আসে। এর পর থেকে ধলু নিখোঁজ ছিল। তার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে ধলুর বাবা আনোয়ার দাবি করেন।

আরো পড়ুন>> খাল থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার

মঠবাড়িয়া থানার ওসি সৈয়দ আব্দুল্লাহ্ জানান, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রাশেদা বেগম ও রিয়াজ নামের দুজনকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানিয়েছে পূর্ পরিচয়ের সূত্র ধরে নিহত ধলু গত রবিবার তাদের বাড়িতে আসলে রাতে ফাঁদপাতা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যায়। পরে তারা লাশ ঘরে রেখে সোমবার রাতে খালে ফেলে দেয়। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে, জিজ্ঞাসাবাদ আরো চলবে।

উল্লেখ্য, মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ মঙ্গলবার দুপুরে তুষখালীর একটি খাল থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের লাশ উদ্ধার করে। লাশের মুখমণ্ডলে কাটা জখমের চিহ্ন ছিল। এ ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। লাশের ময়না তদন্ত শেষে কোন পরিচয় না পাওয়ায় বেওয়ারিশ হিসেবে লাশ পিরোজপুর আঞ্জুমান মফিদুলে দাফন করা হয়।

স্বাআলো/এম