চাঁদাবাজি করতে গিয়ে সহযোগিসহ পুলিশ কনস্টেবল আটক!

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : পুলিশ নিয়োগে বাছাই পর্বে পৌছানোর পর চাঁদাবাজি করতে গিয়ে জনগণের কাছে আটক হয়েছেন রাকিবুল হাসান শান্ত নামে এক যুবক। এসময় তার সহযোগি মামুন হাসান জনিকে আটক করেছে। শান্ত যশোর শহরতলী পালবাড়ি গাজীরঘাট এলাকার শাহআলম হাওলাদারের ছেলে আর মামুন পালবাড়ি এলাকার মোশারেফ হোসেনের ছেলে এবং পালবাড়ি মোড়ের এ বি মাল্টিমিডিয়া দোকানের মালিক।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে যশোর শহরের সিটি প্লাজায়  এস এম ফ্যাশন হাউজে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে তারা আটক হন।

সিটি প্লাজার দোকানদাররা জানান, রাকিবুল হাসান শান্ত পুলিশের পোষাক পরে তার সহাযোগি মামুনকে নিয়ে সিটি প্লাজার ৩৬ নং দোকান এস এম ফ্যাশনে গিয়ে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন।

এসময় কর্মচারীরা দোকানের মালিক শাহ আলমকে খবর দেন।

তিনি দোকানে এসে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন রাকিবুল হাসান শান্ত নামে যশোর পুলিশের নায়েক নেই। তখন অন্যান্য দোকারদার এগিয়ে আসেন এবং কোতয়ালি থানায় ফোন দেন।

আরো পড়ুন>> মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে যশোর পুলিশে ১৯৩ জনের নিয়োগ

কোতয়ালি থানার এসআই ইকবাল ও এ এসআই  শফিকুলসহ একদল পুলিশ এসে রাকিবুল হাসান শান্ত ও মামুন হাসান জনিকে নিয়ে থানায় চলে যায়।

এসআই ইকবাল জানান, সিটি প্লাজার দোকানদাররা তাদেরকে ধরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

যশোর পুলিশের কনস্টেবল পদে রাকিবুল হাসান শান্ত বাছাই পর্বে পৌঁছেছে। ‍পুলিশ ভেরিফাই রিপোর্ট পজিটিভ আসলে তার নিয়োগ হবে।

চাঁদাবাজি করতে গিয়ে আটক হওয়ায় এখন তার বিরুদ্ধে মামলা হবে। তবে বিষয়টি পুলিশ খতিয়ে দেখছে। বিষয়টি চাঁদাবাজি না অন্যকিছু। তারপরেই চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এই মুহূর্তে এর বেশি বলা সম্ভব না বলে জানান এসআই ইকবাল হোসেন।

স্বাআলো/এম

 

.

Author