সরকারি গাছ বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

বরিশাল ব্যুরো : বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার প্রাণি সম্পদ অধিদফতর ও যোগীরকান্দা কমিউনিটি স্বাস্থ্য ক্লিনিকের সরকারি জমি থেকে কয়েক লাখ টাকার বিভিন্ন প্রজাতির বিশাল আকৃতির গাছ বিক্রি করে ওটরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল খালেক রাড়ীর বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

জানা গেছে, ওটরা ইউনিয়নের যোগীরকান্দা এলাকায় ১৯৮৮ সালে তৎকালীন উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে প্রাণি সম্পদ অধিদফতরের নামে ৫ শতাংশ স্থানীয় বাসিন্দা শাহজাহান রাড়ী রেজিস্ট্রি করে দান করেন। এরপর সেখানে ভবন নির্মাণের পর কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছিল। বর্তমানে সেখানে কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। অন্যদিকে যোগীরকান্দা এলাকায় একটি নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক করা হয়েছে। প্রাণি সম্পদ অধিদফতর ও কমিউনিটি ক্লিনিক এলাকায় বিভিন্ন প্রজাতির বিশাল আকৃতির গাছ ছিল। সম্প্রতি ওই গাছ কেটে বিক্রি করে দেন ওটরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল খালেক রাড়ী।

অভিযুক্ত আব্দুল খালেক রাড়ীর জানান, আমি সরকারি গাছ বিক্রি করিনি। তবে মসজিদ উন্নয়নের জন্য মসজিদ কমিটির সভাপতি আনোয়ার হোসেন রাড়ী গাছ বিক্রি করেছেন। এর বেশী আর কিছু বলতে পারবো না। তবে আনোয়ার হোসেন রাড়ী সাংবাদিকদের জানান, গাছ খালেক রাড়ীর নেতৃত্বে বিক্রি হয়েছে। আমি শুধু তাকে সহায়তা করেছে।

আরো পড়ুন>> বরিশাল সফর শেষ করলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

গাছের ক্রেতা সামছুল হক জানান, সরকারি গাছ কিনা আমি জানিনা, খালেক রাড়ীর কাছ থেকে টাকা দিয়ে আমি গাছ ক্রয় করেছি। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম জামাল হোসেন সাংবাদিকদের ডেকে নিয়ে বলেন, কিছু কিছু বিষয় ছাড় দিতে হয়। অভিযুক্তরা আমার নিকটতম স্বজন। তাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করার দরকার নেই।

স্থানীয়রা জানান, ২ লক্ষাধিক টাকার গাছ ১ লাখ টাকায় একই এলাকার গাছ ব্যবসায়ী শামছুল হকেকর কাছে বিক্রি করেন খালেক রাড়ী। বিষয়টি জানাজানি হলে নিজেকে রক্ষা করতে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম জামাল হোসেন এর নিকট দারস্থ হয়েছেন। আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম জামাল তাকে বাঁচাতে বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করছে।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. সব্যসাচী মজুমদার জানান, ওটরা ইউনিয়নের যোগীরকান্দা এলাকায় প্রাণি সম্পদ অধিদফতরের একসময় কার্যক্রম চলতো। বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। এ কারনে সেখানে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যাতায়াত কম। সে সুযোগে কেউ গাছ কেটে নিতে পারে।  তবে সরকারি জমি থেকে কেউ গাছ বিক্রি করে থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. একেএম সামছ উদ্দিন জানান, যোগীরকান্দায় একটি নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে। ক্লিনিকের সামনের রাস্তা থেকে গাছ বিক্রি করা হয়েছে শুনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স্বাআলো/এম