ইন্দুরকানী উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

জেলা প্রতিনিধি, পিরোজপুর :  ইন্দুরকানী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতের নির্দেশে থানায় মামলা হয়েছে। উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিনা বেগমের দুই পা ভেঙ্গে দেয়ার ঘটনায় এ মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামি লোকমান ফকিরকে আটক করেছে।

ইন্দুরকানী থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের কারণে মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীর পা ভেঙ্গে দেয়ার ঘটনায় ১৪ জনকে আসামি করে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। মামলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মৃধা মনিরুজ্জামান, তার ছেলে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাহমুদুর রহমান সোহেল, আব্দুর রশিদ হাওলাদার, আলমগীর হাওলাদার, আলাউদ্দিন হাওলাদারকে আসামি করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেত্রী সেলিনা বেগমের স্বামী জাহিদ হোসেন পিরোজপুর সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দাখিল করলে আদালতে তা আমলে নিয়ে ইন্দুরকানী থানার ওসিকে এজাহার হিসেবে রেকর্ড করার নির্দেশ দেন।

আরো পড়ুন>> সাংবাদিকদের সাথে পিরোজপুরে নবাগত পুলিশ সুপারের মতবিনিময়

প্রসঙ্গত. শুক্রবার উপজেলা মহিলা লীগ নেত্রী সেলিনা বেগম তার স্বামীকে নিয়ে নিজেদের জমিতে ধানের বীজ রোপন শেষে বাড়ি ফেরার পথে প্রতিপক্ষ রশিদ হাওলাদার, আলাউদ্দিন হাওলাদার, আলমগীর হাওলাদার, বাদশা মৃধা, বশির মৃধা, শহিদুল হাওলাদার, নাইম হাওলাদার ও গফ্ফার হাওলাদারসহ কয়েকজন তাদের পথরোধ করে হামলা চালায়। এসময় তারা সেলিনা বেগমকে একটি বাড়িতে আটকে লোহার রডের সাথে পাটের বস্তা পেচিয়ে পিটিয়ে তার দুই পা ভেঙ্গে ফেলে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে জখম করে।

এর পূর্বে তার স্বামী জাহিদ হাওলাদার কয়েকজন মিলে টেনে হিচড়ে তার সামনে থেকে নিয়ে যায়। পরে পরে তার স্বামী বিষয়টি ইন্দুরকানী থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ আহত সেলিনাকে উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

স্বাআলো/এম

 

 

.

Author