অভিনেত্রী কোয়েনা মিত্রকে ছয় মাসের জেল

বিনোদন ডেস্ক: চেক জালিয়াতির মামলায় বলিউডের সাবেক মডেল ও অভিনেত্রী কোয়েনা মিত্রকে ছয় মাসের জেল দিয়েছে আদালত। এছাড়া অভিযোগকারীকে ১.৬৪ হাজার টাকার সুদসহ মোট চার লাখ ৬৪ হাজার টাকা দেয়ারও আদেশ দেয়া হয়েছে।

আজ সোমবার আন্ধেরির মেট্রোপলিটন আদালত এই রায় দেয়।

প্রায় ছয় বছর ধরে চলে আসছে এই মামলা। ২০১৩ সালে কোয়েনা মিত্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছিলেন আরেক মডেল পুনম শেঠি। ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত পরিমাণে টাকা না থাকার কারণে পুনমকে দেয়া কোয়েনার তিন লাখ টাকার চেক বাউন্স করেছিল। তবে শুরু থেকেই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন কোয়েনা।

মামলার বিবরণ বলছে, ব্যক্তিগত প্রয়োজনে পুনম শেঠির কাছ থেকে ২২ লাখ টাকা ঋণ নেন কোয়েনা মিত্র। সেই ঋণ শোধের অংশ হিসেবে তিন লাখের চেক দিলে তা বাউন্স করে। এরপর ২০১৩ সালের ১৯ জুলাই কোয়েনাকে নিয়ম মেনে আইনি নোটিশ পাঠান পুনম। কিন্তু কোনো উত্তর দেন না কোয়েনা। এমনকি টাকাও ফেরত দেন না। অবশেষে ১০ অক্টোবর আদালতে মামলা করেন পুনম।

মামলার শুনানিতে কোয়েনার তরফ থেকে দাবি করা হয়, এত টাকা ঋণ দেয়ার মতো কোনো সামর্থ্যই নেই পুনমের। রায় ঘোষণার সময় আন্ধেরি মেট্রোপলিটন আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট কেতকী চাভান এই যুক্তি খারিজ করে দেন। কোয়েনা এও দাবি করেছিলেন, তার চেক চুরি করেন পুনম। আদালতে এই আবেদনও বিশেষ সুবিধা করতে পারেনি।

রায় ঘোষণার পর কোয়েনা তার প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন, তাকে এই মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। চূড়ান্ত শুনানিতে নাকি তার পক্ষের আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। ফলে যথাযথ শুনানিও হয়নি। এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আবেদন করবেন বলেও জানিয়েছেন কোয়েনা।

স্বাআলো/আরবিএ

.

Author