গৃহকর্মী হত্যায় গৃহকর্তাসহ ৩ জনের যাবজ্জীবন

জেলা প্রতিনিধি, কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গৃহপরিচারিকা রেখা খাতুন হত্যা মামলায় গৃহকর্তাসহ তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ বৃহষ্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী জনাকীর্ণ আদালতে আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো- দৌলতপুর উপজেলার মইশাডাঙ্গা গ্রামের মৃত-নজের আলীর ছেলে হাসেম সরদার (৪৫), শিতলাইপাড়া গ্রামের মৃত-লস্কর মালিথার দুই ছেলে গৃহকর্তা মোফাজ্জেল হোসেন ওরফে মুফাজ (৭০) এবং আকরামুল হক ওরফে আকেম (৪০)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় রেখা খাতুনের প্রতিবেশী হাসেম সরদার বাড়ি থেকে তাকে ডেকে নিয়ে গৃহকর্তা মোফাজ্জেল হোসেনের বাড়িতে দিয়ে আসেন। পরদিন ১৭ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৮টায় নিকটস্থ কলা বাগানের পাশে সরিষা ক্ষেতে নিহতের লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়।

আরো পড়ুন>>>  লাশ উদ্ধারের ২৪ ঘন্টা পর মিলল মাদ্রাসাছাত্রের কাটা মাথা

এ ঘটনায় নিহতের পিতা রুস্তম আলী বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।

মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তরিত হলে তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে দন্ডবিধি ৩০২/৩৪ অভিযোগ এনে ২০১৫ সালের ১৯ মে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

কুষ্টিয়া জজ কোর্টের সহকারী কৌশুলী অ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান, আসামি মোফাজ্জেল হোসেনের বাড়িতে নিহত রেখা কাজ করতো। মোফাজ্জেলের মেয়ের সাথে গ্রামের একটি ছেলের সম্পর্কের বিষয়টি রেখা জেনে যাওয়ায় তাকে প্রতিবেশী হাসেমের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে রাতের আঁধারে হত্যা করে সরিষা ক্ষেতে রেখার লাশ ফেলে রাখা হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত এমন অভিযোগ দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী করে বিজ্ঞ আদালতের কাছে সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হওয়ায় এই রায় ঘোষণা করেন আদালত।

 স্বাআলো/এসএ

.

Author