ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশকে অবরোধ করে আসামি ছিনতাই

জেলা প্রতিনিধি, শরীয়তপুর : শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় পদ্মা নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের সময় অভিযান চালিয়ে ১৩ জনকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে নড়িয়া লঞ্চঘাট এলাকায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাশেদুজ্জামানের নেতৃত্বে নড়িয়া থানা পুলিশ ও নৌ-পুলিশের সমন্বয়ে একটি দল অভিযান চালায়।

নড়িয়া উপজেলা ভূমি কর্মকর্তার কার্যালয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নড়িয়া উপজেলার পদ্মা নদী থেকে খননযন্ত্র দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী মোস্তফা সিকদার। মঙ্গলবার দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাশেদুজ্জামান অভিযান চালিয়ে অবৈধ ড্রেজার ও বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত ১৩ জনকে আটক করে। ড্রেজার ও আটকদের নিয়ে নড়িয়া লঞ্চঘাট এলাকায় পৌঁছালে মোস্তাফা সিকদার ও তার ভাই সুমন সিকদারের নেতৃত্বে প্রায় ৩০/৪০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ পুলিশকে অবরুদ্ধ করে আসামিদের ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ সময় মোস্তফা শিকদারের ভাই সুমন সিকদারসহ তিনজনকে আটক করে পুলিশ।

আরো পড়ুন>> শরীয়তপুরে পোশাক শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগে আটক ১

স্থানীয়রা জানান, নড়িয়া উপজেলায় পদ্মার ভাঙন ঠেকাতে লঞ্চঘাট এলাকায় বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। ওই বালু ফেলার ঠিকাদারি কাজটি করছেন মোস্তফা সিকদার। তিনি ওই কাজে ব্যবহারের জন্য অবৈধভাবে পদ্মা নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছিলেন।

এ বিষয়ে জানার জন্য মোস্তফা শিকদারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন করলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাশেদুজ্জামান বলেন, নড়িয়া উপজেলার পদ্মা নদী থেকে থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন হচ্ছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে পুলিশ নিয়ে অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানকালে একটি অবৈধ ড্রেজার ও বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত ১৩ জনকে আটক করে নিয়ে আসার সময় মোস্তফা শিকদার এবং তার ভাই সুমন শিকদারের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা ও পরে অবরুদ্ধ করে আসামিদের ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ সময় মোস্তফা শিকদারের ভাই সুমন শিকদারকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্বাআলো/এম