যশোরে দুই ‘ডাকাত’ আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : যশোর নড়াইল সড়কের তারাগঞ্জ বাজার সংলগ্ন কালীদাস অধিকারী ও হরিদাস অধিকারীর বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে। আর ডাকাতির ঘটনায় পুলিশ দস্যুতা হিসেবে মামলা রেকর্ড করেছে।

যশোর কোতয়ালি থানার ডিউটি অফিসার শফিকুল ইসলাম জানায়, তারাগঞ্জ বাজারের পাশে দুই বাড়িতে দস্যুতার ঘটনায় কালীদাস অধিকারী অজ্ঞাত পরিচয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি। তবে অভিযান চলছে।

হরিদাস অধিকারীর স্ত্রী কনিকা রানী অধিকারী আজ বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের জানান, যশোর সদর উপজেলার চাঁনপাড়া পুলিশের ইনচার্জ এসআই মিলন কুমার মন্ডল মঙ্গলবার সকালে বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট গ্রামের লিয়াকতের ভাগ্নে ইজিবাইক চালক হাতকাটা সুমন (২০) কে তার সামনে হাজির করেন।

আজ বুধবার সকালে বাঘারপাড়া উপজেলার ছাতিয়ানতলা বাজার থেকে হেলাল নামে এক যুবককে যশোর ডিবি পুলিশ ও চানপাড়া ফাড়ির ইনচার্জ এসআই মিলন তার সামনে হাজির করেন। সে বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট গ্রামের ফুলমিয়ার জামাই। সুমন ও হেলাল ডাকাতির সাথে জড়িত বলে সনাক্ত করেছেন কনিকা অধিকারী বলে তার স্বামী হরিদাস অধিকারী সাংবাদিকদের জানান।

চাঁদপাড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিলন কুমার মন্ডল দস্যুতা আইনে মামলা হয়েছে বলে স্বীকার করে বলেন, কেউ এখনো পর্যন্ত আটক হয়নি। যশোর কোথয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) সমীর কুমার সরকার জানান, তারাগঞ্জে দস্যুতার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কাউকে আটক করা হয়নি। তবে অভিযান অব্যাহত চলছে।

প্রসঙ্গত. সোমবার গভীর রাতে যশোর নড়াইল সড়কের তারাগঞ্জ বাজারের পাশে কালীদাস অধিকারী ও হরিদাস অধিকারীর বাড়িতে বারান্দার গ্রীল কেটে তিন ডাকাত অস্ত্রের মুখে ২লাখ ৯০ হাজার নগদ টাকা ও ১৮ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে। মঙ্গলবার সকালে একই গ্রামের শেখপাড়ার রবির লিচুবাগান থেকে একটি ভ্যানিটি ব্যাগ, একটি স্বর্ণের ব্যাগ ও মহিলাদের প্রসাধনী সামগ্রি উদ্ধার করে। এ ঘটনার পর যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাহ উদ্দিন সিকদার, কোতয়ালি মডেল থানার ওসি মনিরুজ্জামান, ওসি (তদন্ত) সমীর কুমার সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

স্বাআলো/আরবিএ