গোয়েন্দা জালে ৫ সচিব

গোয়েন্দা নজরদারিতে পড়েছেন ৫ সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা:  জি কে শামীমের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গোয়েন্দা নজরদারিতে পড়েছেন ৫ সচিব। জি কে শামীম বিভিন্ন টেন্ডারের কাজ পাওয়ার জন্য তাদেরকে ব্যবহার করতেন। তাদের সঙ্গে জি কে শামীমের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল এবং তাদের সহায়তায় টেন্ডার সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছিলো জি কে শামীম।

একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে যে, জি কে শামীমের অফিসে যে সিসি টিভি ফুটেজ সেখানে এই ৫ জন সচিব যে যেতেন তার পরিষ্কার প্রমাণ পাওয়া গেছে। জিকে শামীম জিজ্ঞাসাবাদেও স্বীকার করেছে যে, তাদেরকে সে মাসে মাসে বিপুল পরিমাণে টাকা দিতো। এই ৫ জন সচিবের মধ্যে দুজন সাবেক সচিব তারা চাকরি শেষে অবসরে গেছেন আর ৩ জন বর্তমানে সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন। বিভিন্ন সরকারি কাজ পেতে তাদেরকে সহায়তা করা ছিল এইসব সচিবদের অন্যতম প্রধান দায়িত্ব। এছাড়াও এই সমস্ত সচিবরা যে সমস্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন সেখানে টেন্ডার সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিতেন যেন এই টেন্ডারটি জি কে শামীমকে দেয়া হয়। এমনকি টেন্ডার প্রণয়ন পক্রিয়ায় এমনভাবে শর্তগুলো যুক্ত করা হতো যেন এই কাজ জি কে শামীম ছাড়া অন্য কেউ না পায়।

একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা বলছে যে, জি কে শামীমের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে যখন পূর্ণাঙ্গ মামলার প্রক্রিয়া শুরু হবে তখন এই উর্ধতন সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নেয়া হবে। আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার একজন উর্ধতন কর্মকর্তা বলেছেন যে, প্রধানমন্ত্রী সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন যে, যারাই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত, যারাই অনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তারা যেই হোক না কেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

স্বাআলো/আরবিএ