দুর্গাপূজা দেখে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার স্কুল ছাত্রী

জেলা প্রতিনিধি, মাদারীপুর : মাদারীপুরে দুর্গাপূজা দেখে বাড়ি ফেরার পথে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতিতা ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাস্থল সদর ও রাজৈরের সীমানাবর্তী এলাকা হওয়ায় মামলা নিতে গড়িমসি করছে পুলিশ। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্বজন ও এলাকাবাসী।

রবিবার রাতে দুর্গাপূজা দেখে বাড়ি ফিরছিল মাদারীপুর সদরের বাহাদুরপুর এলাকার পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী। মাঝপথে জোর করে ভ্যানে তুলে রাজৈরের কমলাপুরের একটি গ্যারেজে নিয়ে যায় পাখুল্লা এলাকার রাজীব ও ইব্রাহিমসহ কয়েকজন বখাটে। পরে সেখানে নিয়ে গণধর্ষণ করে পালিয়ে যায় তারা। এক পর্যায়ে ওই শিক্ষার্থীর চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নির্যাতিতা বলেন, টাকা নিয়ে দোকানে গিয়েছি। এ সময় আমারে জোর করে ভ্যানে করে নিয়ে অত্যাচার করে দুইটা ছেলে।

নির্যাতিতার মা বলেন, আমার মেয়েকে নিয়ে আমি বসে ছিলাম। ওখান থেকে আমার মেয়ে আমার কাছ থেকে টাকা নিয়ে খাবার আনতে গিয়েছে। ওই সময়ই ওরে জোর করে নিয়ে গেছে। আমি ওদেরে শাস্তি চাই।

আরো পড়ুন>> মাদারীপুরে ধর্ষণ-হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্বজন ও এলাকাবাসী। স্থানীয় একজন বলেন, এদের যেন ফাঁসি হয়, এর ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই আমরা।

পরীক্ষা শেষে রিপোর্ট দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের চিকিৎসক। মাদারীপুর সদর হাসপাতাল মেডিকেল অফিসার আবু সফর বলেন, ১৩ বছরের একটি মেয়ের তার পরিবার আমাদের কাছে নিয়ে আসে, আমরা মেয়েটি ভর্তি দিয়ে তার চিকিৎসা শুরু করে দিয়েছি। এবং তার আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

অপহরণের পর ধর্ষণের ঘটনা মাদারীপুরের সদর ও রাজৈর উপজেলার সীমানাবর্তী এলাকা হওয়ায় এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি হয়নি পুলিশের কর্তা ব্যক্তিরা।

স্বাআলো/এম