স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা

রংপুর ব্যুরো: রংপুরের পীরগাছার চৌধুরানী বাজারে ব্র্যাকে কর্মরত স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন তার স্বামী। এঘটনার পরেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন স্বামী। নিহত তাসলিমা আক্তার রুনি পীরগাছা উপজেলার কৈকুড়ি মকরমপুর সুবিদ গ্রামের তোজাম্মেল হক মেম্বারের মেয়ে ও ব্র্যাক চৌধুরানী শাখার হিসাবরক্ষক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। আর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করা আব্দুল্লাহ আল মাসুদ স্বপন, গাইবান্ধা সদর উপজেলার বল্লমঝাড় রঘুনাথ গ্রামের বাসিন্দা।

আজ সোমবার দুপুরে পীরগাছার চৌধুরাণী বাজারে ব্র্যাকের শাখা অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, তিন বছর ধরে বিদেশে ছিলেন তাসলিমার  স্বামী স্বপন। এ সময়ে তার আয়ের সম্পূর্ণ অর্থ স্ত্রী রুনির অ্যাকাউন্টে পাঠান। গত চার মাস আগে স্বপন বাড়িতে ফিরে আসলে স্ত্রীর পরকীয়াসহ বিভিন্ন পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে মতবিরোধের সৃষ্টি হয়। আজ দুপুরে স্বপন তার স্ত্রীর অফিসে এসে কথা আছে বলে একটি কক্ষে নিয়ে যায়। পরে তাকে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে  কোপান। স্ত্রীর মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে  সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেচিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন।

পরে তাসলিমার সহকর্মীরা তাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে পথিমধ্যেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে বিশ্বস্ত একটি সূত্র জানায়, তাসলিমার আগে বিয়ে হয়েছিল। সেই স্বামীর ঘরে একটি সন্তানও রয়েছে। তার এক স্বজনের সাথে পরকীয়া চলছিল। মূলত সেই বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর বিরোধ।

এ ব্যাপারে পীরগাছা থানার ওসি রেজাউল করিম বলেন, চৌধুরাণী বাজারে ব্র্যাকের অফিস থেকে স্বপন নামে একজনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আর তাসলিমার  লাশ রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে রয়েছে। লাশ দুইটির ময়নাতদন্ত করা হবে।

স্বাআলো/এসএ