শনিবার যশোর আ’লীগের দুই ইউনিটের সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : রাত পোহালেই যশোর সদর ও শহর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে যশোরে বিদ্যমান দুইটি গ্রুপ পৃথক প্যালেন ঘোষণা করেছে। যারা সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত তৃণমূলের কাউন্সিলরদের কাছে ভোট প্রার্থনা করতে গ্রামে গ্রামে যান।

এদের বাইরে যশোর সদর উপজেলায় সভাপতি পদে জেলা কৃষক লীগের সহ-সভাপতি শেখ আব্দুল মতলেব বাবু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আবু তালেব প্যানেল ঘোষণা করেছেন। আর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে ফিরোজ খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে আজাহার হোসেন স্বপন আলোচনায় আছেন।

আগামীকাল শহরের ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন ও সদস্য এসএম কামাল হোসেন। এছাড়া প্রধান বক্তা হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার ও বিশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখবেন যশোর-৫ আসনের সংসদ সদস্য এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী স্বপন কুমার ভট্টাচার্য। আর সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিনের বিরোধ কাটিয়ে সম্মেলনকে সামনে রেখে যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারের সাথে ‘গাঁটছড়া’ বেঁধেছেন। এই গ্রুপ থেকে তিনি সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী। আর তার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন শাহারুল ইসলাম। এছাড়া, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ গ্রুপের হয়ে সভাপতি পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হয়েছেন লেবুতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলিমুজ্জামান মিলন।

এদিকে, একই সাথে যশোর ঈদগাহ ময়দানে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন হবে যশোর শহর আওয়ামী লীগের। এজন্যও দুই গ্রুপ থেকে পৃথক প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে। শাহীন চাকলাদারের প্রার্থী হিসেবে মাঠে আছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ ও দপ্তর সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু। আর এমপি গ্রুপের পক্ষে সভাপতি হিসেবে কামাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক পদে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর কবির বিজুর নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

নিজ গ্রুপের নেতাদের দুইটি ইউনিটের শীর্ষ পদে আনতে শাহীন চাকলাদার নিজেই তৎপরতা চালাচ্ছেন। আর এমপি পক্ষের মনোনীত প্রার্থীদের সভাপতি-সম্পাদক করতে কাজ করছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন।

শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী কামাল হোসেন স্বাধীন আলোকে বলেন, দুই যুগের বেশি সময় ধরে শহর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে রাজপথে আছি। সম্মেলনকে সামনে রেখে কাউন্সিলরদের সাথে যোগাযোগ করছি। ওয়ার্ডের অনেক নেতা আমার পক্ষে কাজ করছেন।

শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী লুৎফুর কবির বিজু বলেন, দীর্ঘদিন রাজপথে আছি। আমার পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত। দলে অনুপ্রবেশকারীরা আমার এক ভাইকে হত্যা করে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে প্রতিকুলতার মধ্যেও প্রধানমন্ত্রীর ভিশন বাস্তবায়নে রাজপথে আছি। দায়িত্ব পেলে যশোর শহর আওয়ামী লীগকে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত একটি শক্তিশালী সংগঠনে রুপান্তরে কাজ করবো।

আরো পড়ুন>> যশোরে চারদিনব্যাপী কর মেলার উদ্বোধন

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী মোহিত কুমার নাথ বলেন, কাউন্সিলরদের কাছে ভোট চাচ্ছি। ইতোমধ্যে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। কাউন্সিলরদের বক্তব্য তারা জবাবাদিহীমূলক কমিটি চান। এজন্য সরাসরি ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন করতে হবে। অন্য কিছু বা পকেট কমিটি হলে তা সঠিক হবে না। দল ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আমিও চাই ভোটের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হোক।

সদর উপজেলার আরেক সভাপতি প্রার্থী মেহেদী হাসান মিন্টু বলেন, দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক জীবনে তৃণমূলকে সাথে নিয়ে রাজপথে আছি। দলকে সংগঠিত করে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড মানুষের মাঝে পৌঁছে দিচ্ছি। এখন কাউন্সিলরদের কাছে যাচ্ছি। সাড়াও পাচ্ছি ভাল।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আলিমুজ্জামান মিলন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছেন। আওয়ামী লীগকে স্বচ্ছ ও সাধারণ মানুষের দলে রুপান্তরের জন্য শিক্ষিত, যোগ্য নেতাদের দায়িত্ব দিতে যাচ্ছেন। আমি আশা করবো, আগামী সম্মেলনে সৎ ও যোগ্য নেতারাই দায়িত্ব পাবেন।

স্বাআলো/এম