যৌন হয়রানির অভিযোগে টেনিস ফেডারেশনের সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ বহিষ্কার

ক্রীড়া ডেস্ক : এক কিশোরী ক্রীড়াবিদকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ ওঠার পর বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার টেনিস ফেডারেশনের এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়। এর আগে, বুধবার গোলাম মোর্শেদকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন কিশোরীর চাচা। মামলা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে গুলশান থানার ডিউটি অফিসার এসআই সিনথিয়া বলেন, বুধবার মামলা হয়েছে। একমাত্র আসামি বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ। নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১০ ধারায় ‘শ্লীলতাহানি’র অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীর চাচা গুলশান থানায় করা এজাহারে অভিযোগ করেন, ‘আইটিএফ জুনিয়র টেনিসে অংশ নিতে গত ২ নভেম্বর ঢাকায় এসেছিল আমার ভাতিজি। বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোর্শেদের মাধ্যমে ঢাকা ক্লাবের গেস্ট হাউজে উঠেছিল সে। গত ৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটের দিকে গোলাম মোর্শেদ আমার ভাতিজির কক্ষের সামনে এসে তাকে ডিনারের প্রস্তাব দেন। আমার অপ্রাপ্ত বয়স্ক ভাতিজি প্রস্তাবে রাজি হলে গোলাম মোর্শেদ তার গাড়িতে গুলশানের বাসায় নিয়ে মদ ও সিগারেটের অফার করেন। গাড়িতে বসে গোলাম মোর্শেদ আমার ভাতিজির শরীরের বাম পাশের উরুতে হাত দিয়ে তাকে শ্লীলতাহানি করে এবং অশ্লীল কথাবার্তা বলে।’

‘পরে আমার ভাতিজিকে নিয়ে মোর্শেদ একটি কফিশপে যায়। কফি খাওয়ার পর আমার ভাতিজি তাকে ঢাকা ক্লাবে পৌঁছে দেয়ার অনুরোধ করলে কৌশলে গোলাম মোর্শেদ তাকে আবার বাসায় নিয়ে কুপ্রস্তাব দেয়। আমার ভাতিজি প্রতিবাদ ও চিল্লাচিল্লি করলে গোলাম মোর্শেদ একটি গাড়ি ভাড়া করে তাকে পৌঁছে দেয়। আমার ভাতিজি হতাশাগ্রস্ত হয়ে কাউকে না জানিয়ে ১৪ নভেম্বর আমেরিকা চলে যায়। আমার ভাই ও ভাতিজির সঙ্গে যোগাযোগ করে বিস্তারিত জানার পর এজাহার করি। সবকিছু জানতে সময় লাগায় এজাহার করতেও বিলম্ব হয়। এ বিষয়ে বিবাদীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে মর্জি হন।’

স্বাআলো/এম