বিদেশি ডাক্তার দম্পতি বাংলাদেশের গ্রামের হাসপাতালে, লজ্জায় দেশিয়রা

ডেস্ক রিপোর্ট: টানা ৩২ বছর টাংগাইল জেলার কালিয়াকৈরে গ্রামের দরিদ্র মানুষদের চিকিৎসা দেয়ার পর মারা যান ডাক্তার ভাই হিসাবে পরিচিত ডাক্তার এড্রিক বেকার। দূরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হলে অনেকেই চেয়েছিলেন- উনাকে ঢাকায় চিকিৎসা করাতে। তবে তিনি ঢাকা যেতে চাননি।  নিজের তৈরি করা হাসপাতালেই এড্রিক বেকার ২০১৫ সালে মারা যান।

মৃত্যুর পূর্বে তিনি চেয়েছিলেন- এই দেশের কোনো মানবতবাদী ডাক্তার যেন গ্রামে এসে তার প্রতিষ্ঠিত এই হাসপাতালের হাল ধরেন। কিন্তু হানিফ সংকেতের ইত্যাদিতে প্রচারিত প্রতিবেদন অনুসারে- এ দেশের একজন ডাক্তারও তার সেই আহ্বানে সাড়া দেয়নি।

আরো পড়ুন>>> ইংরেজি পড়তে না পারায় দুই শিক্ষক বহিষ্কার

দেশের কেউ সাড়া না দিলেও এড্রিক বেকার আহ্বানে সূদর আমেরিকা থেকে ছুটে এসেছেন- আরেক মানবতাবাদী ডাক্তার দম্পতি জেসিন এবং মেরিন্ডি। যে দেশে যাওয়ার জন্য দুনিয়ার সবাই পাগল। শুধু নিজেরা যে এসেছেন তা না। নিজেদের সন্তানদেরও সাথে নিয়ে এসেছেন তারা। ভর্তি করে দিয়েছেন গ্রামেরই স্কুলে। গ্রামের শিশুদের সাথে খেলছে। ডাক্তার জেসিন কী সুন্দর করে লুঙ্গি পরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

ডাক্তার জেসিন বলেন, গ্রামের গরীব মানুষদের সেবা করতে এখানে এসেছি। ডাক্তারের কাজ সেবা করা। সেটা করতে পারলেই আমরা খুশি।

এক বিদেশি দম্পতি বাংলাদেশের গ্রামে এসে সাধারণ রোগীদের সেবা করছেন। অথচ আইন করেও আমাদের দেশের ডাক্তারদের গ্রামে আনা যাচ্ছে না। ডা. জেসন এবং মেরিণ্ডা দম্পত্তি আমাদের বিশাল এক লজ্জায় ফেলে দিলেন।

স্বাআলো/এসএ