রবিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য মিলবে না জ্বালানি তেল

ডেস্ক রিপোর্ট: আগামীকাল রবিবার থেকে যশোরসহ খুলনা, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে পেট্রল পাম্পে জ্বালানি বিক্রি বন্ধ হচ্ছে। ১৫ দফা দাবিতে এই ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

১৫ দফা দাবিগুলো হলো, প্রিমিয়াম পরিশোধ করে ট্যাংকলরি শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা দুর্ঘটনা বিমা প্রথা প্রণয়ন, ট্যাংকলরির ভাড়া বৃদ্ধি, পেট্রল পাম্পের জন্য কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল, জ্বালানি তেল বিক্রির প্রচলিত কমিশন কমপক্ষে সাড়ে ৭ শতাংশ করা, জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীরা কমিশন এজেন্ট নাকি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান-বিষয়টি সুনির্দিষ্টকরণ,  পেট্রল পাম্পের জন্য পরিবেশ অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল, পেট্রল পাম্পে অতিরিক্ত পাবলিক টয়লেট, জেনারেল স্টোর ও ক্লিনার নিয়োগের বিধান বাতিল, সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক পেট্রল পাম্পের প্রবেশদ্বারের ভূমির জন্য ইজারা গ্রহণের প্রথা বাতিল, ট্রেড লাইসেন্স ও বিস্ফোরক লাইসেন্স ব্যতীত অন্য দপ্তর বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক লাইসেন্স গ্রহণের সিদ্ধান্ত বাতিল, বিএসটিআই কর্তৃক আন্ডার গ্রাউন্ড ট্যাংক পাঁচ বছর অন্তর বাধ্যতামূলক ক্যালিবের্শনের সিদ্ধান্ত বাতিল, ট্যাংকলরি চলাচলে পুলিশি হয়রানি বন্ধ, সুনির্দিষ্ট দফতর ব্যতীত সরকারি অন্যান্য দাফতরিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ডিলার বা এজেন্টদেরকে অযথা হয়রানি বন্ধ, নতুন কোনো পেট্রল পাম্প নির্মাণের ক্ষেত্রে সংশিষ্ট বিভাগীয় জ্বালানি তেল মালিক সমিতির ছাড়পত্রের বিধান চালু, পেট্রল পাম্পের পাশে যেকোনো স্থাপনা নির্মাণের পূর্বে জেলা প্রশাসকের অনাপত্তি সনদ গ্রহণ বাধ্যতামূলক ও বিভিন্ন জেলায় ট্যাংকলরি থেকে জোরপূর্বক পৌরসভার চাঁদা গ্রহণ বন্ধ করা।

বাংলাদেশ জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক একেএম শামসুল কাদের মিন্টু জানান, কেন্দ্রীয় সিন্ধান্ত অনুযায়ী পেট্রোল পাম্প মালিকরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মালিকরা ১৫ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডেকেছেন। আগামীকাল থেকে  জেলায় সকল প্রকার জ্বালানি তেল বিক্রয় ও উত্তোলন বন্ধ থাকবে।

স্বাআলো/এসএ