সন্তানকে পানিতে ফেলে হত্যা, পাষণ্ড বাবা আটক

জেলা প্রতিনিধি, বরগুনা: বরগুনার আমতলী উপজেলার গোজখালী গ্রামে ছেলে সন্তান না হওয়ায়ায় এক পাষণ্ড বাবা ৪০ দিন বয়সী শিশু কন্যাকে পানিতে ফেলে হত্যা করেছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, জাহাঙ্গীর সিকদার ও সীমা দম্পতির সোহাগী (৯) ও জান্নাতী (৩) নামে ২টি কন্যা সন্তান রয়েছে। এরপর গত ৮ ডিসেম্বর ওই দম্পতির আরেকটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। বাবা জাহাঙ্গীর সিকদার বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি। তার আশা ছিল একটি ছেলে সন্তানের।

গত ১৬ জানুয়ারি রাত ১০টার সময়  শিশুটির মা সীমা বেগম ও নানী পারুল বেগম ঘরে প্রবেশ করে পেছনের দরজা খোলা ও মেয়ে জিদনিকে দেখতে না পেয়ে  চিৎকার দেয়। লোকজন ছুটে এসে। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে ঘরের পেছনের ডোবায় পানির মধ্যে শিশু জিদনির ঘুমানোর কাঁথা বালিশ এবং বিছানাপত্র দেখতে পায়। খবর পেয়ে আমতলী থানা পুলিশ রাত ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে এবং ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে বাবা জাহাঙ্গীর সিকদারকে আটক করে। শুক্রবার দুপুরে মা সীমা বেগম থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। জিজ্ঞাষাবাদ শেষে আজ শনিবার দুপুরে  জাহাঙ্গীর সিকদার তার জিদনীকে পানিতে ফেলে হত্যা করার কথা স্বীকার করে।

সীমা বেগম বলেন, আমার গর্ভে তৃতীয় কন্যা সন্তান জন্ম হওয়ায় আমার স্বামী খুশি হতে পারেনি। বাবা হয়ে ওকে এভাবে মেরে ফেলছে।

আমতলী থানার ওসি আবুল বাশার বলেন, জিজ্ঞাষাবাদে  জাহাঙ্গীর সিকদার জিদনীকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছে।

স্বাআলো/এসএ