ছোট মেয়েকে কবরে রেখে বড় মেয়ের লাশ নিতে হাসপাতালে বাবা

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: ছোট মেয়ে মোহনাকে (১৫ মাস) দাফন করে বড় মেয়ে মৌ’র (৭) লাশ নিতে হাসপাতালে এসেছেন বাবা বিল্লাল সর্দার। এমনই হৃদয়বিদারক ঘটেছে ঘটনা যশোরের মণিরামপুর উপজেলার দেবীদাসপুর গ্রামে। সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বোনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

ইটভাটার শ্রমিক বিল্লাল সর্দার জানান, সে এবং তার স্ত্রী আমেনা খাতুন মণিরামপুর উপজেলার দেবীদাসপুর গ্রামে পদ্মা ইটভাটায় কাজ করেন। তাদের দুই মেয়ে এবং এক ছেলে। তারা ইটভাটায় কাজ করায় পার্শবর্তী ছোট একটি কুঁড়ে ঘরে বসবাস করেন। তার বাড়ি খুলনা জেলার দাকোপ উপজেলার নালিয়া গ্রামে।

আরো পড়ুন>>>  সীমান্তে গুলিতে নিহতের লাশ দুইদিন পর ফেরত দিল বিএসএফ

রবিবার বিকেল ৪টার দিকে মোহনাকে কোলে করে মৌ ভাটার অদূরে ঝিকরগাছা মণিরামপুর সড়কের জামতলা নামক স্থানে দোকানে যায়। সেখান থেকে ফেরার সময় পিকআপের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এ সময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মোহনার মৃত্যু হয়।

অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় মৌ’কে তাৎক্ষণিক যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করা হয়। সোমবার সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারও মৃত্যু হয়।

বিল্লাল সর্দার জানান, বিকেলে ছোট মেয়ের মৃত্যু হলে তার মরদেহ নিয়ে বাড়িতে যাওয়া হয়। সকালে দাফন শেষ হওয়ার পর বেলা ১১টার দিকে বড় মেয়ের লাশ নিতে যশোর জেনারেল হাসপাতালে এসেছি।

মণিরামপুর থানার এসআই আব্দুর রহমান জানান, পিকআপের ধাক্কায় রবিবার মোহনা এবং সোমবার যশোর জেনারেল হাসপাতালে মৌ এর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। পিকআপটি জব্দ করা গেলেও পালিয়েছে ড্রাইভার।

স্বাআলো/এসএ