ভাতিজির বান্ধবীকে ধর্ষণ, সেই ছাত্রলীগ নেতা বরখাস্ত

বরিশাল ব্যুরো: বরিশাল নগরীর সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইস্যু ক্লার্ক বনি আমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মহসিনউদ্দীন স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুপস্থিতিসহ অভিযোগের কারণ ১০ দিনের মধ্যে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ছাদেকুল আরেফিন এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত ৯ ফেব্রুয়ারি (রবিবার) সরকারি মহিলা কলেজের এক ছাত্রীকে নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে অপহরণ করে জোরপূর্বক কুয়াকাটার একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে নগরীর বিমানবন্দর থানায় বনি আমিনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়। পরদিন সোমবার ওই ছাত্রীকে ঝালকাঠিতে বনি আমিনের এক নিকটাত্মীয়ের বাড়ি থেকে পুলিশ উদ্ধার করে। এ ঘটনার পর থেকে পলাতক অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা বনি আমিন।

আরো পড়ুন>>>বরিশালে ২৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী মারবেল মেলা অনুষ্ঠিত

অভিযোগের কারণে গত মঙ্গলবার তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করেছে ছাত্রলীগ। তবে গত ১০ দিনেও অভিযুক্ত বনি আমিনকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে, ধর্ষণে অভিযুক্ত ইস্যু ক্লার্ক বনি আমিনকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কে মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ মিছিল করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। একই দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং পুলিশ কমিশনারের কাছে স্মারকলিপি দেয় বরিশাল মহিলা পরিষদ।

বনি আমিন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি এবং জেলা ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক। ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় তাকে বহিষ্কার করে ছাত্রলীগ।

স্বাআলো/আরবিএ