বাড়িতে বাবার লাশ রেখে কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দিচ্ছে মেয়ে

জেলা প্রতিনিধি, ফরিদপুর: ফরিদপুরের সদরপুরে বাবার মরদেহ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে মেয়ে।

রবিবার সদরপুর উপজেলার বিশ্ব জাকের মঞ্জিল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয় মেয়ে বিথী আক্তার। সে উপজেলার চন্দ্রপাড়া সুলতানিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। বিথী বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থী বিথী আক্তারের বাড়িতে চলছে তার বাবার মরদেহ দাফনের প্রস্তুতি। স্বজনরা শোকাহত। এমন অবস্থায় বাবার মরদেহ বাড়িতে রেখে পরীক্ষা দিচ্ছে বিথী।

এলাকাবাসী জানায়, ঢেউখালী ইউনিয়নের চন্দ্রপাড়ার রাজারচর কাঠতলা মোড় এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার আলী (৫০) সকালে নিজ বাড়িতে মারা যান। আনোয়ার আলীর দুই ছেলে ও চার মেয়ে রয়েছে। তার মৃত্যুতে সেজ মেয়ে বিথী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার বিষয়ে দোটানায় পড়ে। তবে সে পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। বাবাকে হারিয়ে কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দেয় সে। পরীক্ষা শেষে বিথী বাড়ি ফিরলেই বাবার দাফন কাজ শেষ হয়।

আরো পড়ুন>>>  বাবার লাশ বাড়িতে রেখে কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা কেন্দ্রে ছেলে

বিথীর বাবা আনোয়ার আলী একজন কৃষক। যত কষ্টই হোক মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার স্বপ্ন ছিল তার। পারিবারিকভাবে অস্বচ্চল থাকা সত্ত্বেও মেয়ের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে বাবার প্রবল ইচ্ছার জেরে বিথী এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে।

পরীক্ষায় অংশ নেয়ার আগে বিথী আক্তার জানায়, বাবা তাকে অনেক ভালোবাসতেন। বাবা চাইতেন, সে যেন পড়ালেখা করে অনেক বড় হয়। বাবার ভালোবাসা এবং স্বপ্নের জন্যই তার এ পরীক্ষা দেয়া।

পরীক্ষায় দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল চন্দ্র শীল বলেন, বাবাকে হারানো যে কোনো সন্তানের জন্য খুবই কষ্টদায়ক। এরপরও বিথী বাবা হারানোর কষ্ট নিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছে। আমরা তার পরীক্ষার সময় যতটা সহযোগিতা দরকার করছি।

সদরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা  লাল উদ্দিন বলেন, বিথী পরীক্ষা দেয়ার জন্য আসার পর জানতে পেরেছি। তাকে সান্ত্বনা দিয়েছি এবং পরীক্ষা দিতে উৎসাহ দেয়া হয়েছে।

স্বাআলো/এসএ