নড়াইলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে হত্যা

All-focus

জেলা প্রতিনিধি, নড়াইল: নড়াইলের লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা বদর খন্দকারকে (৪২) কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় ইউনিয়নের টিচর কালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

সন্ত্রাসীদের হামলায় চেয়ারম্যানের দুই পা ও ডান হাত শরীর থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়া বাম হাতের তিনটি আঙ্গুল কেটে পড়ে যায়।  মুর্মূর্ষ অবস্থায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

পুলিশ, স্থানীয়রা ও বদর খন্দকারের আত্মীয় আব্দুল আলীম জানান, সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে কালনা ঘাট এলাকায় অবস্থিত তার ইটভাটা থেকে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে ৯৫নং টি চর-কালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছালে একদল সন্ত্রাসী  তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে। এসময় তাদের হাতে থাকা রাম দা, ছ্যান দাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেপরোয়াভাবে কোপাতে থাকে। এনময় স্থানীয় লোকজন ও পথচারীরা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বদর খন্দকারের ডান হাতের কবজি ও দুই পা শরীর থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়। এছাড়া ধারালো অস্ত্রের কোপে বাম হাতের তিনটি আঙ্গুল কেটে পড়ে যায়।

পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বর্তমান চেয়ারম্যান  উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল শিকদারের সাথে বদর খন্দকারের দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্ধ-সংঘাত চলে আসছিল। এর জের ধরে তার ওপর এই হামলা হয়েছে।

লোহাগড়া থানার ওসি আলমগীর হোসেন বলেন, কালনা এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া নড়াইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) টহল জোরদার করেছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের আটকের জোর চেষ্টা চলছে।

স্বাআলো/ডিএম