ফেঁসে যাচ্ছে ওয়েস্টিন, কারা যেতেন প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটে?

ডেস্ক রিপোর্ট: বহুল আলোচিত নরসিংদী আওয়ামী মহিলা যুবলীগের নেতা শামীমা নূর পাপিয়া দীর্ঘদিন ধরে ওয়েস্টিন হোটেলের প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট ভাড়া নিয়েছিলেন। এই প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটেই তিনি বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানাতেন। সেখানে প্রায়ই বিভিন্ন আসর বসতো। এছাড়াও পাপিয়া ওয়েস্টিন হোটেলের ২৩ তলার বারও রিজার্ভ করতেন।

আরো পড়ুন>>>  মুখ খুলছেন পাপিয়া, আতঙ্কে আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতারা

অথচ পাঁচ তারকা হোটেলের নিয়ম অনুযায়ী একটা রুমে যদি কোনো অতিথি থাকে অর্থাৎ কেউ যদি কোনো রুম ভাড়া নেয়, তার কাছে যারাই দেখাসাক্ষাৎ করতে আসবে, তাদেরকে নাম রেজিস্টার করতে হবে। তাদের পরিচয়পত্র যাচাইয়ের নিয়মও বাধ্যতামূলক রয়েছে। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে হোটেলগুলোকে নির্দেশনা দেয়া রয়েছেই।

আরো পড়ুন>>>  পাপিয়ার কললিস্টে ১১ মন্ত্রী, ৩৩ এমপি

কিন্তু পাপিয়া প্রায় ২ মাস ধরে প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট ভাড়া নিয়ে করে ছিলেন, সেখানে তিনি ৮১ লাখ টাকা দিয়েছিলেন। অথচ তার রুমে কারা যাওয়া-আসা করতো তাদের কোনো তালিকা ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষের কাছে নেই। এটা পাঁচতারকা হোটেলের নীতিমালার পরিপন্থী বলে বলছেন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তারা। কারণ একজন অতিথির নিরাপত্তাসহ হোটেলের নিরাপত্তার জন্য কারা বোর্ডারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন, তা জানা জরুরি ছিল।

জানা গেছে যে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এই বিষয়টি নিয়ে খুব দ্রুত ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে। ইতোমধ্যে তারা পাপিয়ার সঙ্গে কারা কারা ঐ প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটে সাক্ষাৎ করতে যেতেন তার তালিকা ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষের কাছে চেয়েছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তালিকা তাদের কাছে নেই। এই তালিকা না থাকারটা ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষের অপরাধ বলেই গণ্য করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে আরো তদন্ত চলছে।

ইতোমধ্যে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে পাপিয়াকে। পাপিয়া বেশকিছু প্রভাবশালী ব্যক্তির নামও বলেছে। তারা যে শুধুমাত্র রাজনীতিবিদ, তাই নয়। অনেক ব্যবসায়ী, প্রকোশলী, আমলাসহ বিভিন্ন মহলের লোকজন রয়েছে। তাদেরকেই এখানে তিনি আপ্যায়ন করতেন। অনেকের ছবিও তুলে রাখা হয়েছে। অনেকের কাছে বিভিন্ন রকম টেন্ডার এবং তদবিরের জন্যও এই স্যুটটি ব্যবহার করা হতো।

স্বাআলো/এসএ