সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

জেলা প্রতিনিধি, পিরোজপুর: পিরোজপুর সদর উপজেলার শংকরপাশা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য সিদ্দিকুর রহমান খলিফাকে (৬০) কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা।

সোমবার সকালে শংকরপাশ ইউনিয়নের দক্ষিণ শংকরপাশা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত সিদ্দিকুর রহমান চার ছেলে ও এক মেয়ের জনক। ছিদ্দিকুর রহমানের এক ছেলে মাইনুল ইসলাম পুলিশের এএসআই হিসেবে চাকরি করছেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য আলামিন মাতুব্বর নটু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে ইউপি সদস্য আলামিন মাতুব্বর নটু জানান, ছিদ্দিকুর রহমান খলিফা সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে পিরোজপুর শহরে আসার পথে তার বাড়ির প্রায় ৫শ গজ দূরে সন্ত্রাসীরা তাকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

ইউপি সদস্য আলামিন মাতুব্বর নটুর ভাষ্য স্থানীয় কাওসার নামে এক ব্যক্তির সাথে তার বিরোধ ছিল। কাওসার এর আগে তাকে মারধর করেছে।

পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আহসানুল কবীর বাদল জানান, সিদ্দিকুর রহমান অ্যাডভোকেট সরোয়ার হোসেনের সহকারী (মহুরি) হিসেবে কাজ করতেন।

নিহতের বেয়াই শহিদুল ইসলাম খলিফা জানান, সিদ্দিকুর রহমান খলিফা সকালে তার কর্মস্থল জেলা জজ আদালতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে কিছু দূরে যাওয়ার পরেই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে সন্ত্রাসীরা মোটরসাইকেলে এসে সিদ্দিকুর রহমান খলিফাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে ফেলে রেখে যায়।

পিরোজপুর সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আরিফ হাসান জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণেই হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই সিদ্দিকুর রহমান খলিফা মারা যান।

নিহতের ছেলে পুলিশের সিটি এসবি শাখায় কর্মরত মাইনুল ইসলাম জানান, গেল বছরের রমজান মাসে একই এলাকার ঝাউতলা স্কুল এলাকায় বসে কাওসার আমার বাবাকে মারধর করেছে। বিষয়টি আমি পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সে জানিয়েছি। আজকে আবার তার (কাওসারের) নেতৃত্বে আমার বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

পিরোজপুরের এসপি হায়াতুল ইসলাম খান জানান, পারিবারিক ও জমি সংক্রান্ত বিরোধের পূর্ব জের ধরেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে এবং তদন্তের পরে বিস্তারিত বলে যাবে।  এ ঘটনার সাথে জড়িতের আটকের চেষ্টা চলছে।

স্বাআলো/এসএ