একটি ভবন পাল্টে দিয়েছে বিদ্যালয়ের চিত্র

চুনারঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি গ্রামের নাম বালুমারা। পাশেই বন্য প্রাণীর অভয়ারণ্য রেমা-কারেঙ্গা। এ গ্রামের বেশির ভাগ জনগণ চা বাগানের শ্রমিক, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী। যারা চা বাগান ও পাহাড়ে কাজ করেন। তাদের ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার কথা চিন্তা করে ১৯৮২ সালে বালুমারা পাহাড়ি টিলার ওপর একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করেন স্থানীয় লোকজন।

পরবর্তীতে সেটি সরকারীকরণ করা হয় ২০১৩ সালে। দীর্ঘদিন বাঁশ-ছনের ঘরে ছাত্র-ছাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষাকার্যক্রম ছালিয়ে যাচ্ছিলেন। উপজেলা সদর থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে বালুমারা গ্রামের বিদ্যালয়টিতে একটি পাকা ভবন এ এলাকার ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের দীর্ঘদিনের একটি স্বপ্ন ছিল। লোকজন বিষয়টি স্থানীয় এমপি এবং বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলীর নজরে আনেন। পরে তাঁর প্রচেষ্টায় নতুন একটি ভবনের অনুমোদন হয়।

ভবনটি নির্মাণ করে চুনারুঘাট উপজেলা প্রকৌশলী এলজিইডি। নতুন ভবন পেয়ে খুশি ছাত্র-ছাত্রীরা। এ ব্যাপারে চুনারুঘাট উপজেলা প্রকৌশলী মিশুক দত্ত বলেন, দুর্ঘম পাহাড়ি এ অঞ্চরে বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ করা সত্যিকার অর্থেই অনেক বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। যা উপজেলা শিক্ষা অফিস, বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটিসহ সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, এ ভবন নির্মাণের ফলে পাল্টে গেছে বিদ্যালয়ের চিত্র। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত আমার গ্রাম-আমার শহর বাস্তবায়নে সকল বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করতে এলজিইডি সর্বদাই সচেষ্ট।

স্বাআলো/এসএ