নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮, এখনও নিখোঁজ কনে, অপেক্ষায় বর ও স্বজনরা

নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ কনে সুইটি খাতুন পূর্ণিমার সন্ধানে রাজশাহীর পদ্মা নদীর পাড়ে অপেক্ষা করছেন বর ও স্বজনরা। নৌকাডুবির প্রায় ২৬ ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ায় তাদের জীবিত উদ্ধারের আশা ছেড়েই দিয়েছেন তারা।

রাজশাহী ব্যুরো: রাজশাহীর পদ্মায় নৌকাডুবির ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮ জনে দাঁড়িয়েছে। আজ রবিবার দুজনের এবং শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ছয় জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিখোঁজ ৪১ জনের মধ্যে কেবল কনে সুইটি খাতুন পূর্ণিমা এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

রাজশাহী নৌ থানার ওসি মেহেদী মাসুদ এ তথ্য জানান।

ওসি জানান, রবিবার উদ্ধার দুজন হলেন—নববধূ সুইটির খালা আঁখি খাতুন (২৫) এবং সুইটির ফুফাতো বোন রুবাইয়া আক্তার স্বর্ণা (১২)। আঁখি খাতুনের বাবার নাম আবু হোসেন। বাড়ি ডাঙেরহাট। স্বামীর বাড়ি নগরীর ভাটাপাড়া এলাকায়। আর অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী স্বর্ণা মহানগরীর আলিগঞ্জ মোল্লাপাড়া এলাকার বাসিন্দা রবিউল ইসলামের মেয়ে।

এর আগে যাদের লাশ উদ্ধার হয়েছে তারা হলেন কনের বাবা শামিম হোসেন (৩৫), তার মেয়ে রশ্নি খাতুন (৭), কনের ভগ্নিপতি রতন আলী (৩০), কনের খালা মনি খাতুন (৩০) , আত্মীয় একলাস আলী (২২) ও রতনের মেয়ে মরিয়ম (৫)।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় চরখিদিরপুর এলাকায় বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে ৪১ যাত্রী নিয়ে দুটি নৌকা ডুবে যায়। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই ৬ জন সাঁতরে কূলে ওঠেন। বাকিদের মধ্যে ২৭ জনকে স্থানীয়দের সহায়তায় জীবিত উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

স্বাআলো/এসএ