১০ টাকার মাস্ক ২০০, সিভিল পোশাকে ভোক্তা অধিকারের হানা

সিলেট ব্যুরো: দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ায় সিলেটসহ সর্বত্র বেড়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। হাঁচি-কাশিতে ছড়ানো এ রোগটি থেকে সুরক্ষা পেতে দেশে মাস্ক ব্যবহার বেড়েছে হঠাৎ কয়েকগুণ। ফলে বাজারে মাস্কের দামও বাড়িয়েছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। এ অবস্থায় মাস্কের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সিলেটে অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিদফতর।

আজ সোমবার দুপুরে সিলেট নগরের জিন্দাবাজারস্থ ইদ্রিছ মার্কেটে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এ অভিযান চালায় ভোক্তা অধিদফতর সিলেট। এ সময় আদিল সায়েন্টিফিক স্টোর নামে একটি দোকানে মাত্রাতিরিক্ত দামে মাস্ক বিক্রির অভিযোগে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা ও দোকান মালিককে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর সিলেট মহানগরের সহকারী পরিচালক শ্যামল পুরকায়স্থ। এ সময় তাকে সহযোগিতা করে সিলেট মহানগর পুলিশের একটি দল।

অভিযানকালে শ্যামল পুরকায়স্থ বলেন, ব্যবসায়ীরা সংকটময় মুহূর্তকে পুঁজি করে বেশি দামে মাস্ক বিক্রি করছিলেন এমন খবরে আমরা বাজারে অভিযানে নেমে এর সত্যতা পাই। জানতে পারি ১০-২০ টাকার একটি মাস্ক ২০০ টাকা দামে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

তিনি বলেন, আমরা সিভিল পোশাকে লোক পাঠানোর পর এর সত্যতা পেয়ে ইদ্রিছ মার্কেটে অভিযান চালাই। অভিযানে আদিল সায়েন্টিফিক স্টোরকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। যদিও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪০ ধারায় ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা হওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু বেশি দামে আর মাস্ক বিক্রি করবেন না বলে প্রতিজ্ঞা করার আমরা পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছি।

শ্যামল পুরকায়স্থ আরো বলেন, জরিমানা আদায়ের সময় আদিল সায়েন্টিফিক স্টোরের মালিক জয়নাল আবেদিনকে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। তিনি এমন কাজ ভবিষ্যতে আর না করবেন না বলে অঙ্গীকার করেছেন। মাস্কের বাজার নিয়ন্ত্রণে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের এই কর্মকর্তা।

স্বাআলো/এসএ