আউয়ালের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধানে দুদক

জেলা প্রতিনিধি, পিরোজপুর: পিরোজপুরের সাবেক এমপি আবদুল আউয়ালের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান শুরু করেছে দুদক। সঙ্গে তার স্ত্রীও রয়েছেন অনুসন্ধানের তালিকায়। তাদের সম্পদের তথ্য যাচাই-বাছাই করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দুদকের উপ-পরিচালক আলী আকবরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার কমিশন থেকে তাকে এ দায়িত্ব দেয়া হয়। এর আগে দুদকের এই কর্মকর্তা বাদী হয়ে আবদুল আউয়াল ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করেন। এমপি থাকাকালে ক্ষমতার অপব্যবহার করে পিরোজপুরের বিভিন্ন স্থানে সরকারি জমি দখল, ওই জমিতে অনুমোদনহীন রিসোর্ট নির্মাণ, ভুয়া লোক দিয়ে জমি দখল ও আত্মসাতের অভিযোগে মামলাগুলো করা হয়।

সম্প্রতি তিন মামলায় পিরোজপুরের জেলা জজ আবদুল মান্নান আবদুল আউয়াল ও তার স্ত্রীর জামিন নামঞ্জুর করে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এই নির্দেশের পরই আউয়ালের সমর্থকরা শহরে তাণ্ডব চালান। রাস্তায় ব্যারিকেড দেন। দোকানপাট বন্ধ করে দেন। কয়েক ঘণ্টা পিরোজপুর অচল হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় সরকার পিরোজপুরের জেলা জজ আবদুল মান্নানকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়। তার স্থলে আরেকজন বিচারককে ভারপ্রাপ্ত জেলা জজের দায়িত্ব দিয়ে তার মাধ্যমে জামিন আদেশ দেয়া হয়। এ নিয়ে চারদিকে সমালোচনা শুরু হয়। এটি বিচার বিভাগের ওপর এক ধরনের হস্তক্ষেপ বলে মনে করেন অনেকে। যদিও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, রূঢ় আচরণের কারণে বিচারককে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ ধরনের অভিযোগ কোনো বিচারকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত হলে তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার বিধান আছে। কিন্তু সেটি এ ক্ষেত্রে মানা হয়নি।

স্বাআলো/এসএ