সৌদিতে ২৯৮ জন সরকারি কর্মকর্তা আটক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ক্ষমতার অপব্যবহার ও ঘুষ নেয়ার অভিযোগে ২৯৮ জন সরকারি কর্মকর্তাকে আটক করেছে সৌদি আরব। এদের মধ্যে সেনা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাও রয়েছেন।গত রবিবার রাতে দেশটির দুর্নীতি বিরোধী কমিশন নাজাহর এক ঘোষণায় জানানো হয়েছে, হেফাজতে থাকা এসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করছেন তদন্তকারীরা। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এই খবর জানিয়েছে।

২০১৭ সালের অভিযানে আটক শত শত প্রভাবশালীকে রিটজ কার্লটন হোটেলে রাখে সৌদি কর্তৃপক্ষ

দুর্নীতির অভিযোগে ২০১৭ সালে বড় ধরনের অভিযান চালায় সৌদি আরব। ওই সময় রাজ পরিবারের বহু সদস্য এবং দেশটির প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী আটক করা হয়। রিয়াদের বিলাসবহুল রিটজ কার্লটন হোটেলে তাদের আটক রাখা হয়। সেখানে অনেকের ওপর নির্যাতন চালানোর অভিযোগও ওঠে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ওই অভিযান ব্যবহার করে সম্ভাব্য বিরোধীদের দমন করেন ক্ষমতাসীন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

প্রায় ১৫ মাস পর গত বছর সৌদি রাজ দরবার ওই অভিযান সমাপ্তির ঘোষণা দেয়। পরে সাধারণ সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের ঘোষণা দেয় দেশটির কর্তৃপক্ষ। রবিবার রাতে নাজাহর এক টুইট বার্তায় বলা হয়, ঘুষ, আত্মসাৎ ও ক্ষমতার অপব্যহারের মাধ্যমে মোট ৩৭ কোটি ৯০ লাখ রিয়াল তছরুপের অভিযোগে ২৯৮ জন কর্মকর্তাকে আটক করা হয়েছে।

নাজাহর ঘোষণায় জানানো হয়েছে, আটককৃতদের মধ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আট কর্মকর্তা রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে ২০০৫ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে সরকারি চুক্তি থেকে ঘুষ গ্রহণ ও অর্থ পাচারের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া আটক হয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ২৯ কর্মকর্তা। ঘুষ নেয়ার অভিযোগে আটক হয়েছেন দুই বিচারকও। তবে আটক হওয়া কর্মকর্তাদের নাম বা অন্য কোনও পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

উল্লেখ্য, সরকারি কর্মকর্তাদের গ্রেফতারের আগে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার অভিযোগ এনে গত ৭ মার্চ  গ্রেফতার করা হয় বাদশাহ সালমানের ভাই রাজপুত্র আহমাদ বিন আবদুল আজিজ, সাবেক যুবরাজ মোহাম্মদ বিন নায়েফ ও নওয়াফ বিন নায়েফকে। অনেকেই মনে করছেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান সব ধরনের ভিন্নমত নির্মূলের মিশন নিয়েছেন এবং রাজা হওয়ার পথ নির্বিঘ্ন করতে চান। এই বিবেচনায় রাজতন্ত্রের অভ্যন্তরের সমালোচকদের কাছে কঠোর বার্তা দেবে দিতে এই গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে।

স্বাআলো/টিআই