দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন প্রবাসীরা, করছেন বিয়েও

সিলেট ব্যুরো:  করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা প্রবাসীদের আটকাতে পারছে না বিয়ে কিংবা অন্য কোনো আনুষ্ঠানিকতা থেকে। প্রতিদিন একশ’রও বেশি প্রবাসী সিলেট অঞ্চলে আসছেন। বাড়ি ফিরে তারা অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আবার কেউ কেউ করছেন বিয়েও।

প্রবাসী অধ্যুষিত উপজেলা বালাগঞ্জ ও কানাইঘাটে শুক্রবার দুই প্রবাসীর বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা আটকানো হয়। এ ঘটনা জানার পর জনমনে আতঙ্ক বেড়েছে। তবে প্রশাসনের দাবি, সবাই কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

মধ্যপ্রাচ্য থেকে ১১ মার্চ আসা এক প্রবাসী বিয়ে করতে গেলে কানাইঘাট প্রশাসন তাকে আটকিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য করে। কাতার থেকে ১২ দিন আগে আসা বালাগঞ্জের আরেক প্রবাসী বিয়ের আসরে বসার আগে স্থানীয় চেয়ারম্যান তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠান।

বালাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মুনিম বলেন, তাকে বলেছি, এখন না, আগে ২১টা দিন যাক, তারপর আপনি বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা করেন। কনেকে নিয়ে আসবেন। তিনি আমাদের কথা শুনেছেন।

প্রবাসীরা ওসমানী বিমানবন্দরে নেমে সরাসরি বালাগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে চলে যান। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এ নিয়ে জনমনে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

বালাগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি সাহাব উদ্দিন শাহীন বলেন, আমরা অনুরোধ জানাচ্ছি তাদের একটা নিরাপদ স্থানে ১৪ দিন রাখা হোক।

এদিকে বালাগঞ্জেকতজন প্রবাসী এসেছেন তার হিসাব স্থানীয় প্রশাসনের কাছে না থাকলে চলতি মাসে ৭৭ জনের আসার কথা জানা গেছে। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আদনানুর রহমান চৌধুরী জানান, এখন পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২১ জন। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেই কেউ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাংশু কুমার সিংহ বলেন, যাদেরকে ফোন দিয়ে পাচ্ছি, তাদেরকে নির্দেশনা মানার জন্য বলছি, তারা মানছেন কিনা তা মনিটর করছি।

তবে থানা প্রশাসনের দাবি, সবাই কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গাজী আতাউর রহমান বলেন, আমার থানা এলাকায় যারা বিদেশ থেকে এসেছেন তারা সবাই নিজেই হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

সিলেট অঞ্চলে ২০ হাজারও বেশি প্রবাসী দেশে ফিরেছেন। কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন মাত্র এক হাজার ১২৪ জন।

স্বাআলো/এসএ