প্রবাসীর স্ত্রী ও শিশুকন্যার মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি, কুমিল্লা: কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে এক প্রবাসীর স্ত্রী ও তার শিশুকন্যার রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। আজ রবিবার বিকাল নাগাদ লাশ দুটির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হবে। আগের দিন শনিবার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথেরপেটুয়া ইউনিয়নের নারারপাড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূ্ত্রে জানা যায়, ২০১২ সালে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথেরপেটুয়া ইউনিয়নের বাহরাইনপ্রবাসী আবদুর রহিমের সাথে পার্শ্ববর্তী নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার মৃত আবদুর রবের মেয়ে বকুল বেগম (৩০) এর বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের রুপা আক্তার (৭) ও ফাতেমা আক্তার (৩) নামে দুই কন্যা সন্তান রয়েছে।

এদিকে, শনিবার বিষপান অবস্থান স্থানীয়রা গৃহবধূ বকুল বেগম ও তার দুই কন্যাশিশু রুপা আক্তার ও ফাতেমা আক্তারকে উদ্ধার করে সোনাইমুড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক মা বকুল ও তার শিশুকন্যা ফাতেমাকে তাৎক্ষণিক মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় মুমূর্ষু অবস্থায় অপর শিশুকন্যা রুপা আক্তারকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

নিহত বকুল বেগমের মা সামিনা বেগমের অভিযোগ, শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমার মেয়ে ও দুই নাতনিকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর করে মুখে বিষ ঢেলে দিয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে জানার চেষ্টা করা হলেও শ্বশুর শাহজাহানের পরিবারের কাউকে পাওয়া যায়নি।

মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মেছবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এখন পর্যন্ত থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। তবে তিনি স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে থানায় একটি জিডি করেছেন।

এদিকে সোনাইমুডি থানা পুলিশ মা ও মেয়ের লাশ হাসপাতাল থেকে উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছেন। এ ছাড়া ওই থানায় একটি জিডিও করা হয়েছে। সোনাইমুড়ি থানার ওসি আবদুস সামাদ জানান, আজ রবিবার বিকাল নাগাদ আশা করি লাশ দুটির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হবে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অপর শিশু এখন শঙ্কামুক্ত।

স্বাআলো/এসএ