করোনা সন্দেহে ৭ মাসের শিশু আইসোলেশনে, বাড়ি লকডাউন

জেলা প্রতিনিধি, কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সন্দেহে ৭ মাসের এক শিশুকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) তাপস কুমার সরকার জানান, ২৩ মার্চ শিশুটিকে ঠান্ডা, জ্বর ও কাশি নিয়ে হাসপাতালে আসেন পরিবারের সদস্যরা। শিশুটিকে শিশু ওয়ার্ডে নিউমোনিয়ার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। কিন্তু ওই শিশুটির স্বাস্থ্যের ক্রমশ অবনতি হওয়ায় করোনা সন্দেহে সকালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে নেয়া হয়। তিনি জানান করনো সংক্রমনের সব আলামতই রয়েছে ওই শিশুটির শরীরে।

তাপস কুমার সরকার আরো জানান, পরিবারের সদস্যদের কাছে ভর্তির সময় জানতে চাওয়া হয়েছিল শিশুটির পরিবারের কোন সদস্য বিদেশ থেকে এসেছে কিনা। সেসময় তারা অস্বীকার করলেও পরবর্তিতে আমরা জানতে পারি শিশুর বাবা ৯মার্চ সিঙ্গাপুর থেকে দেশে এসেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে জিজ্ঞাসাবাদে পরিবারের সদস্যরা স্বীকার করেন শিশুটির বাবা গত ৯ মার্চ সিঙ্গাপুর থেকে দেশে আসেন এবং তিনি পরিবারের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করেন। এই তথ্য পাওয়ার পর পরই ওই শিশুটিকে শিশু ওয়ার্ড থেকে আজই আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়। শিশুটি আপতত বিপদমুক্ত নন। স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে। বিষয়টি আইইডিসিআরকে জানানো হয়েছে তারা নমুনা সংগ্রহ করবে বলেও জানান ওই চিকিৎসক।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী জানান, শিশুটির প্রবাসী বাবাসহ ওই পরিবারের পাঁচ সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে এবং পুরো বাড়িটিকে লকডাউন করা হয়েছে। শিশুটির বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে।

স্বাআলো/এসএ