যশোরে এসিল্যান্ডের কাণ্ডে সমালোচনার ঝড়

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সাধারণ মানুষকে বিনা প্রয়োজনে বাইরে না আসার অনুরোধ করা হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সারাদেশে সেনাবাহিনী কাজ করছে।  তবে এরই মধ্যে যশোরের মণিরামপুরে তিন বৃদ্ধকে এক সরকারি কর্মকর্তার কান ধরে দাঁড় করানোর ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।

আজ শুক্রবার বিকেলে উপজেলার চিনাটোলা বাজারে এই ঘটনাটি ঘটে।

মাস্ক না পরায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মনিরামপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই তিন বৃদ্ধকে কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন।  তিনি কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখার ছবি মোবাইলে ধারণ করেন। রাতে এ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় জনসমাগম নিয়ন্ত্রণে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসানের নেতৃত্বে শুক্রবার বিকেল থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে চিনাটোলা বাজারে অভিযানের সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে পড়েন প্রথমে দুই বৃদ্ধ। এর মধ্যে একজন বাইসাইকেল চালিয়ে আসছিলেন। অপরজন রাস্তার পাশে বসে কাঁচা তরকারি বিক্রি করছিলেন। তবে তাদের মুখে মাস্ক ছিল না। এ সময় পুলিশ ওই দুই বৃদ্ধকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে সাইয়েমা হাসান শাস্তি হিসেবে তাদের কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন। শুধু তাই নয়, এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিজেই তার মোবাইল ফোনে এ চিত্র ধারণ করেন। এ ছাড়া পরবর্তীতে অপর এক ভ্যান চলককে অনুরূপভাবে কান ধারিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন।

এসি(ল্যান্ড) সাইয়েমা হাসান এ শাস্তি দেয়ার সত্যতা স্বীকার করেন। তবে সাংবাদিকদের সাথে তিনি এনিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান উল্লাহ শরিফী জানান, কান ধরে দাঁড় করে রাখাটা অত্যন্ত দুঃখজনক। বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখবেন।