গায়ে জ্বর স্বামীকে ঘরে ঢুকতে দিলেন না স্ত্রী

জেলা প্রতিনিধি, বগুড়া: ঢাকা থেকে জ্বর নিয়ে বগুড়ার আদমদীঘিতে নিজ বাড়িতে গিয়ে বিপত্তিতে পড়েছেন এক দিনমজুর। জ্বরের কথা শুনে স্ত্রী তাকে ঘর থেকে বের করে দেন। পরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ওই বাড়িতে গিয়ে পুরো পরিবারকে কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেন। এছাড়া ওই এলাকার বিদেশফেরত আরো দুই ব্যক্তির পরিবারকেও হোম কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে।

সোমবার বিকালে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার কেশরতা গ্রামে এ ঘটনায় তিন বাড়িতে লাল পতাকা টানিয়ে দেয়া হয়।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আদমদীঘির কেশরতা গ্রামের ইউসুফ আলী প্রায় দু’বছর পর ২০ মার্চ তিনি বাড়িতে আসেন।

একইদিন বয়েজ উদ্দিনের ছেলে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসানও বাড়িতে ফেরেন।

সর্বশেষ মোজাম্মেল হকের ছেলে কাবিল উদ্দিন ঢাকা থেকে শরীরে জ্বর নিয়ে ট্রাকে করে সোমবার সকালে বাড়িতে আসেন। তার জ্বরের কথা জানতে পেরে স্ত্রী তাকে ঘর থেকে বের করে দেন।

পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে করোনাভাইরাস সন্দেহে পুরো গ্রামে তোলপাড় শুরু হয়। খবর পেয়ে আদমদীঘি সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ানকে বিষয়টি জানান। পরে দুপুরে মেডিক্যাল টিম নিয়ে ডা. দেওয়ান ওই গ্রামে যান।

ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, দুবাই ও ঢাকা ফেরত তিন ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে তাদের পরিবারকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিন করেছেন। তিন বাড়িতে লাল পতাকা টানানো হয়েছে। এছাড়া তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের কোনও উপসর্গ নেই বলে জানান তিনি। এদের মধ্যে জ্বরে আক্রান্ত দিনমজুর কাবিল উদ্দিনের বাড়িতে তার ব্যবহারের জন্য আলাদা একটি টয়লেট স্থাপন করে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা তিন পরিবারকে ১৪ দিনের খাবার সরবরাহ করবেন বলে জানিয়েছেন।

স্বাআলো/এসএ