করোনা নিয়ে এশিয়া অঞ্চলকে ভয়াবহ দু:সংবাদ দিলো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরো সময় লাগবে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

সংস্থাটি বলছে, এই মুহূর্তে ভাইরাসটির বিস্তার ঠেকাতে যে পদক্ষেপগুলো নেয়া হচ্ছে, তাতে দেশগুলো গণসংক্রমণ এড়াতে প্রস্তুত হওয়ার সময় পাচ্ছে।

মঙ্গলবার ডব্লিউএইচওর পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক তাকেশি কাসাই এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, নানা ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার পরও মহামারি যতদিন চলবে ততদিন এ অঞ্চলে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কাটবে না।

আরো পড়ুন>>>  করোনা আতঙ্কের মধ্যেই পদ্মা সেতুর সব পিলারের কাজ শেষ

২০১৯ সালের শেষদিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী এই ভাইরাস ছড়ায়। করোনাভাইরাস মহামারীতে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৮ লাখ ৫ হাজার ৩৭৭। আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও স্পেন।

এক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে ডব্লিউএইচও’র কর্মকর্তা কাসাই বলেন, এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এ মহামারী দ্রুত শেষ হবে না। এ পরিস্থিতি দীর্ঘ সময়ের এক লড়াই। আমরা কিছুতেই অসতর্ক হতে পারব না। ব্যাপক মাত্রায় গোষ্ঠী সংক্রমণ রোধে প্রতিটি দেশেরই প্রস্তুতি নিতে হবে।

প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দ্বীপরাষ্ট্রগুলোর মতো যেসব দেশের সম্পদ সীমিত তাদের অগ্রাধিকার দিতে হবে বলে জানান তিনি। কাসাই বলেন, কারণ, এসব দেশে আক্রান্তদের শনাক্ত করতে নমুনা অন্য দেশে পাঠাতে হয় এবং পরিবহনে বাধানিষেধের কারণে এটি আরো কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

ডব্লিউএইচওর টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজার ম্যাথিউ গ্রিফিথ বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কোনো দেশই নিরাপদ থাকবে বলে মনে করে না। কারণ, করোনাভাইরাস সবখানেই পৌঁছে যাবে। মহামারীর কেন্দ্র এখন ইউরোপ হলেও একসময় অন্য অঞ্চলগুলোও এর কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে বলে সতর্ক করেন তিনি।