রেলের তেল চুরির সময় হাতেনাতে ধরা, উপ-সহকারী প্রকৌশলী বরখাস্ত

রাজশাহী ব্যুরো : রাজশাহী রেলওয়ের ডিপো থেকে তেল চুরির সময় হাতেনাতে ধরা পড়েছেন তিনজন। বৃহস্পতিবার দুপুরে তেল চুরির সময় তাদের আটক করে পরিচালনাকারী সংস্থা রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরবিআর)। এ ঘটনায় পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল হাসানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এতে তার সম্পৃক্ততা খুঁজে দেখা হচ্ছে।

আটকরা হলেন, যমুনা ওয়েল কোম্পানির ডিপো ইনচার্জ আমজাদ হোসেন, যে ট্যাংকার ট্রাকে তেল ঢোকানো হচ্ছিল তার হেলপার ইলিয়াস হোসেন এবং যমুনা অয়েলের কর্মচারী মুকুল আলী।

ধারণা করা হচ্ছে, রাজশাহী রেলস্টেশনে ট্রেনের লরি থেকে প্রায় ১১ হাজার লিটার তেল চুরি হয়ে গেছে।

রাজশাহী আরবিআর’র পরিদর্শক আহসান হাবিব বলেন, ডিপোতে তেল চুরি করে ট্যাংকার ট্রাকে ঢোকানো হচ্ছিল। খবর পেয়ে তারা তিনজনকে আটক করেন।

তিনি আরো জানান, ২০ এপ্রিল ঈশ্বরদী থেকে ৩০ হাজার লিটার সরকারি তেল রাজশাহীতে আসে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অবহেলায় এই তেল চুরি হচ্ছিল। চুরির সময় পাঁচ হাজার লিটার তেল তারা জব্দ করেছেন। ট্যাংকার ট্রাকটিও জব্দ করা হয়েছে। আগে কী পরিমাণ তেল চুরি হয়েছে তা তদন্তের পরই বলা যাবে। চুরির সঙ্গে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

স্থানীয় ও রেলওয়ের নিরাপত্তা কর্মী সূত্রে জানা গেছে, এর আগে বেশ কয়েক ট্রাক তেল চুরি হয়েছে। সর্বশেষ আজ দুপুরে এক ট্রাক তেল চুরির সময় বিষয়টি জানাজানি হয়। খবর পেয়ে নিরাপত্তা কর্মীরা ট্রাকটি ধরে ফেলেন। তবে ট্রাকচালক পালিয়ে যান। কে কে এই চুরির সঙ্গে জড়িত তা তদন্ত করছে রেল কর্তৃপক্ষ।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের চিফ ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার সফিকুর রহমান জানান, তেল চুরির ঘটনায় রেলের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আবদুল হাসানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তার সম্পৃক্ততাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

স্বাআলো/এসএ