নতুন এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা ঈদের আগে বেতন পাচ্ছেন

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা : নতুন এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতনভাতা পেতে যাচ্ছেন। তালিকাভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে তালিকা চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগ সংশ্লিষ্ট অধিদফতর। এখন প্রতিষ্ঠানের কোড নাম্বার প্রদানের মাধ্যমে শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্তির কাজ শুরু করেছে। ঈদের আগেই তারা বেতন পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সারা দেশে ২৭৩৭টি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নতুন করে এমপিওভুক্ত হলেও এখনো বেতন পায়নি এসব প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৩০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী। জুনের মধ্যে বাজেটে এমপিওর জন্য বরাদ্দ প্রায় ১হাজার ২০০ কোটি টাকা খরচ করতে না পারলে এ অর্থ অন্য খাতে চলে যাবে। এমন শষ্কার মধ্যে ঈদের আগেই নতুন এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনভাতা ছাড় করতে তোড়জোড় শুরু করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরই অংশ হিসেবে ছুটির মধ্যেই গতকাল রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের এমপিও সংশ্লিষ্টরা অফিস করেছেন। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি সপ্তাহে এমপিও সরকারি অর্ডার (জিও) হতে পারে বলে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, আগামী জুনের আগে অর্থ ছাড় না করলে শিক্ষকরা আর্থিক সুবিধা পাবেন না। এমপিও খাতের অর্থ অন্য খাতে খরচ হতে পারে। এ কারণে গতকাল রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ২ বিভাগের কর্মকর্তারা এমপিও নিয়ে কাজ করেছেন। এ সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত গেজেট জারি করা হবে। এরপর প্রতিষ্ঠানের কোড সৃষ্টি এবং শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে আবেদন গ্রহণ করতে মাউশিকে নির্দেশ দেয়া হবে।

প্রায় সাড়ে ৯ বছর এমপিওভুক্তি বন্ধ থাকার পর গত বছরের ২৩ অক্টোবর নতুন দুই হাজার ৭৩০টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরবর্তীতে আরো ৭টি প্রতিষ্ঠানকে বিশেষ বিবেচনায় এমপিওভুক্ত করা হয়। তালিকাভুক্ত অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে বিতর্ক দেখা দিলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল-কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ত্যাদির সঠিকতা যাচাই করতে মাউশির ডিজির নেতৃত্বে বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস) একজন প্রতিনিধি, সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডের একজন প্রতিনিধি, মাউশির কলেজ ও মাধ্যমিক শাখার দুই পরিচালক, মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব নিয়ে কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্য সচিব করা হয় মাউশির মাধ্যমিক শাখার উপপরিচালকে। কমিটির সদস্যরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও প্রতিষ্ঠানে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরিসংক্রান্ত কাগজপত্র যাচাই করে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠায়।

স্বাআলো/কে