কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলায় পিটিয়ে হত্যা

জেলা প্রতিনিধি, কুমিল্লা : ঢাকা থেকে আগত ভাতিজাদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলায় বড় ভাই, ভাতিজাসহ তাদের লোকজনের হামলায় ছোট ভাই মারা গেছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার সোন্দাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কিছু দিন আগে বড় ভাই দুলালের দুই ছেলে সহিদ (২৮) ও আরমান হোসেন (২১) ঢাকা থেকে বাড়ি আসে। এ নিয়ে তাদের চাচা হোসেন মিয়া দুই ভাতিজাকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে বাড়ি থেকে বের হতে নিষেধ করেন। এতে ভাতিজারা ক্ষিপ্ত হয়ে চাচা হোসেন মিয়াকে গালমন্দ করেন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে বড় ভাই দুলাল, তার ছেলে সহিদ, আরমান, আজিম, জালাল ও তার ছেলে ফারুকসহ ১০ থেকে ১২ জন দেশী অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে হোসেন মিয়াকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে ওই চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত হোসেনের স্ত্রী কহিনুর বেগম বলেন, সোমবার তার স্বামী এক আত্মীয়ের নামাজে জানাযা শেষে বাড়িতে আসার পর ভাতিজাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা নিয়ে ভাই ও ভাতিজাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তারা লাঠি ও রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে তাকে হত্যা করে। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত করে হত্যাকারীদের বিচারের দাবি জানান।

অভিযুক্ত দুলাল বলেন, বাড়ির জায়গা নিয়ে তার ভাইয়ের সাথে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়।

নাঙ্গলকোট থানার ওসি বখতিয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, ভাই ভাতিজারা মিলে হোসেন মিয়াকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। পরবর্তীতে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় ছয়জনকে আটক করা হয়েছে। বাদির অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাআলো/কে