‘গেম চেঞ্জার’ রাশিয়া উদ্ভাবিত করোনার ওষুধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাশিয়া দাবি করেছে, তারা করোনা রোগীদের চিকিৎসায় এমন একটি ওষুধের অনুমোদন দিয়েছে যাকে বলা হচ্ছে গেম চেঞ্জার। তারা আগামী সপ্তাহ থেকে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় এই ওষুধটি ব্যবহার করবে বলেও জানিয়েছে।

দেশটিতে করোনা আক্রান্ত হয়েছে  ৪ লাখ ১৪ হাজার ৮৭৮জন ।  এই গেম চেঞ্জার ওষুধ খুঁজে পাওয়ার খবরটি পুরো বিশ্বের জন্যই সুসংবাদ।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইল জানাচ্ছে, রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসায় অ্যাভিফ্যাভির ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। প্রথম ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্র্যায়ালে প্রত্যাশিত ফলাফল পাওয়ার পরই এটি ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়।

অ্যাভিফ্যাভির হচ্ছে ফ্যাভিপিরাভিরের পরিবর্তিত সংস্করণ। ফ্যাভিপিরাভির জাপানে ফ্লুর চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়। আর এটিকে সংস্কারের মাধ্যমে অ্যাভিফ্যাভির তৈরি করেছে রাশিয়া। যা তৈরি করা হয়েছে কোভিড-১৯ আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য। এটিকে কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে বিশ্বের সবচেয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ প্রতিষেধক হিসাবে দাবি করেছে রাশিয়া।

এ প্রতিষেধকের ফর্মুলা দ্রুতই বিশ্বকে জানানো হবে। একইসঙ্গে জুন মাসের মধ্যে রাশিয়ার হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করা হবে ওষুধটির ৬০ হাজার ডোজ।

রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড (আরডিআইএফ) ওষুধটি রাশিয়ান ফার্মাসিটিক্যাল ফার্ম চেমরারের সঙ্গে যৌথভাবে তৈরি করেছে। আরডিআইএফ বলছে, প্রথম ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সারিয়ে তুলতে অ্যাভিফ্যাভির খুবই কার্যকরী বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

আরডিআইএফ প্রধান কিরিল দিমিত্রিয়েভ বলেন, ওষুধটির ক্লিনিক্যাল টেস্টে খুবই ভালো ফল পাওয়া গেছে। ওষুধটি ব্যবহারের চারদিন পর ৬৫ শতাংশ রোগীর শরীরেই ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের চূড়ান্ত ধাপে বর্তমানে ৩৩০ জন রোগীর ওপর প্রয়োগ করা হচ্ছে ওষুধটি। আগামী ১১ জুন থেকে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় এ ওষুধ ব্যবহার করবে রাশিয়া।

প্রসঙ্গত, ফ্যাভিপিরাভির বানিয়েছে জাপানের ফুজিফিল্ম টোয়ামা কেমিক্যাল। এই ড্রাগের ব্র্যান্ড নাম হল ‘অ্যাভিগান’। ২০১৪ সালে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের প্রকোপ যখন মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছিল তখন এই ওষুধ বানিয়েছিল জাপানের অন্যতম বড় ফার্মাসিউটিক্যালস ফুজিফিল্ম। এবার রাশিয়া এটির সংস্কার করে একে করোনা চিকিৎসার গেম চেঞ্জার হিসাবে দাবি করেছে।

স্বাআলো/কে