ওসির অপসারণ চায় ইউপি চেয়ারম্যানরা

জেলা প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি জাবেদ মাহমুদের অপসারণ চান সাতজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ প্রস্তাব করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে সাত ইউপি চেয়ারম্যানের পক্ষে বক্তব্য দেন আশুগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. সালাহ উদ্দিন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির বিরুদ্ধে সরকারি বালু লোপাটের অভিযোগ নিয়ে সংবাদ প্রকাশের জেরে ওসি জাবেদ মাহমুদ গত ২ জুলাই রাতে আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সোনারামপুর গ্রামের স্থানীয় সাংবাদিক আশেকুর রহমান রনির বাড়িতে গিয়ে তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দুর্ব্যবহার সম্পর্কে জানতে চাইলে আমার সঙ্গেও দুর্ব্যবহার করেন ওসি। এ সময় আমাকে থানায় নিয়ে শায়েস্তা করার হুমকি দেন।

সংবাদ সম্মেলন থেকে ওসি জাবেদ মাহমুদের অপসারণ দাবি করেন ইউপি চেয়ারম্যানরা।

তবে ওসি জাবেদ মাহমুদ অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বলেন, আমি রনির চেহারাই দেখিনি, তিনি নিয়মিত মামলার আসামি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রনিকে থানায় নিয়ে আসতে চাইলে চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিন বাধা দেন। পরবর্তীতে আমার সঙ্গে চেয়ারম্যান ফোনে কথা বলার পর রনিকে আধা ঘণ্টা পর থানায় পাঠানো হবে বললে তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘটনাস্থল থেকে চলে আসেন।

সংবাদ সম্মেলনে আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা ইউপি চেয়ারম্যান জিয়া উদ্দিন খন্দকার, দুর্গাপুর ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউল করিম খান সাজু, তালশহর ইউপি চেয়ারম্যান আবু শ্যামা, আড়াইসিধা ইউপি চেয়ারম্যান মো. সেলিম মিয়া, শরীফপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধুরী ও তারুয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইদ্রিস হাসান উপস্থিত ছিলেন।

স্বাআলো/জি