যাদবপুর কলেজের তিন শিক্ষক দুই প্রতিষ্ঠান থেকে বেতন তুলছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: ঝিনাইদহের মহেশপুরের যাদবপুর কলেজের তিন শিক্ষক একই সাথে দুই প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারি বেতন-ভাতা উত্তোলন করছেন। এছাড়া নতুন এমপিও হওয়ায় কলেজটির এই তিন শিক্ষকের ব্যাংক একাউন্টে এরিয়া হিসেবে জমা হয়েছে আরো সাত লাখ ৪৮ হাজার ১০০ টাকা।

কলেজটির অধ্যক্ষ মঞ্জুরুল আলম দিনু, গণিতের প্রভাষক শরিফুল ইসলাম, পদার্থবিজ্ঞানের প্রভাষক হাবিবুর রহমান ও ইসলাম শিক্ষার প্রভাষক মাওলানা হাফিজুর রহমান তথ্য গোপন করে সরকারি টাকা এভাবে আত্মসাত করছেন।

তবে বিষয়টি তেমন কোন সমস্যা নয় বলে মনে করছেন অধ্যক্ষ মঞ্জুরুল আলম। তিনি বলছেন, কলেজটির এমপিও না থাকায় ওই তিন শিক্ষক অন্যত্র চাকরি করতেন। এখন এমপিও হয়ে গেছে। তারা তাদের আগের চাকরি ছেড়ে দেবেন।

জানা যায়, ২০০৪ সালে যশোর-ঝিনাইদহের সীমান্তবর্তী অঞ্চল মহেশপুরের যাদবপুর কলেজটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। শুরুতেই কলেজটিতে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন চৌগাছার মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানবিভাগের শিক্ষক শরিফুল ইসলাম, এবিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানবিভাগের শিক্ষক হাবিবুর রহমান এবং মহেশপুরের জলুলী দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা হাফিজুর রহমান। এই তিন শিক্ষক কলেজে যোগাদান করলেও তাদের আগের প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা অব্যাহত রাখেন এবং এমপিও অনুযায়ী নিয়মিত সরকারি বেতন-ভাতা উত্তোলন করেন। তবে ২০১৯ সালে যাদবপুর কলেজটিকে সরকার এমপিও ভুক্ত করলেও তারা সেই তালিকায় ওঠেন। এজন্য সরকারি নিয়ম অনুযায়ী এরিয়া হিসেবে এক বছরের বেতন-ভাতা পান। ইতিমধ্যে কলেজটি থেকে নিয়মিত বেতন পাওয়ার পাশাপাশি এরিয়ার টাকাও তাদের ব্যাংক হিসেবে জমা হয়ে গেছে। একই সাথে তারা এখনো স্ব স্ব স্কুলের শিক্ষক হিসেবে সরকারি বেতন-ভাতা উত্তোলন করছেন।

মাকাপুর বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম বলেন, যাদবপুর কলেজটির শুরুতে আমাদের স্কুলের শিক্ষক শরিফুল ইসলাম প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। শুনেছি তার এমপিও হয়েছে। বিষয়টি তিনি আমাকে মৌখিকভাবে জানিয়েছেন। তবে স্কুল থেকে তিনি এখনো পদত্যাগ করেননি। তাই নিয়ম অনুযায়ী তিনি বেতন-ভাতা পাচ্ছেন।

এবিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান কবির বলেন, আমাদের স্কুলের শিক্ষক হাবিবুর রহমান যাদবপুর কলেজে প্রভাষক হিসেবে এমপিওভুক্ত হয়েছেন বলে শুনেছি। কিন্তু তিনি এখনো আমাকে কিছু জানাননি। তাই স্কুল থেকেও তিনি বেতন-ভাতা পাচ্ছেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের খুলনা অঞ্চলের উপ-পরিচালক (স্কুল) নিভা রানী পাঠক বলেন, বিষয়টি যাচাই করে যদি ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়, তাহলে অবশ্যই আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের খুলনা অঞ্চলের পরিচালক (কলেজ) প্রফেসর হারুন অর রশিদ বলেন, এমন কোন অভিযোগ আমরা পাইনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

স্বাআলো/ডিএম