চৌগাছায় ছাত্রলীগ সভাপতির রগ কেটে হত্যার চেষ্টা

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেনের (৩০) বাম পায়ের রগ কেটে ও হাতুড়ি পেটা করে হত্যার চেষ্টা করেছে প্রতিপক্ষ। একই সময়ে তার মোটরসাইকেলে থাকা মিঠুন বিশ্বাসের মাথায়ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মক জখম করেছে দুর্বৃত্বরা। তাদের দু’জনের বাড়ি চৌগাচা উপজেলার বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে ।

শুক্রবার রাত ৮ টা ১৫ মিনিটের দিকে বেড়গোবিন্দপুর বাঁওড় ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে এই ঘটনা ঘটে।

চৌগাছা হাসপাতালে চিকিৎসাধিন ইব্রাহিম হোসেন বলেন, রাত আটটার পরে তিনি চৌগাছা বাজার  থেকে নিজ গ্রাম বেড়গোবিন্দপুর যাওয়ার পথে ওই স্থানে সেখানে ওৎ পেতে থাকা ১০/১৫ জন রাম দা, লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে। বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের পারভেজ, মহব্বত মল্লিক, রকি, বিপুল মল্লিক ও আলমকে আমি চিনতে পেরেছি। অন্যদের আমি চিনতে পারিনি। তিনি বলেন, আমি দৌড় মেরেছিলাম। তারা আমাকে ধরে রামদা দিয়ে আমার বাম পায়ে কোপ দিয়ে রগ কেটে দেয়। অপর পায়েও লাঠি, হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এসময় তাদের দুজন আমার মাথা ঠেসে দরে রেখেছিল। যেন আমি মরে যায়। আমি মরে গেছি ভেবে তারা আমাকে ফেলে রেখে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে চৌগাছা হাসপাতালে নিয়ে আসে।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বি এম শফিকুজ্জামান রাজু বলেন, ইব্রাহিম হোসেনকে যারা এভাবে নৃশংসভাবে হত্যার উদ্দেশ্য আঘাত করে আহত করেছে তাদের গ্রেফতার করতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. হাদিউর রহমান সিয়াম বলেন, ইব্রাহিমের বাম পায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করায় তার শিরা কেটে গেছে। এছাড়াও ভারী কিছু রেদিয়ে আঘাত করায় উভয় পায়ে মারাত্মক ইনজুরি হয়েছে। দ্রুত এক্স-রে করলে বোঝা যাবে কি অবস্থা। এছাড়া মিঠুনের মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। মাথার সিটিস্ক্যান করতে হবে। এ ধরনের রোগীর সাধারণত ছয় থেকে বারো ঘন্টার আগে কিছু বলা যায় না।

স্বাআলো/কে