চৌগাছায় জলাবদ্ধ ধানীক্ষেত, বেমালুম ভুলে গেলেন সরকারি কর্তা!

আজিজুর রহমান,  চৌগাছা (যশোর) থেকে: যশোরের চৌগাছার পাশাপোল ইউনিয়নের এড়োলের বিলে শতশত বিঘা ধানী জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। প্রভাবশালীদের অপরিকল্পিত ভেড়ি বাঁধের কারণে এই অবস্থার সৃস্টি হয়েছে। সমস্যা সমাধানে ক্ষতিগ্রস্তরা স্মারকলিপি দিলেও বিষয়টি বেমালুম ভুলে গেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানান, এড়োলের বিলে কৃষি জমির পানি নিষ্কাশনে একটি সরকারি খাল রয়েছে। এ খাল দিয়ে পানি  যশোরের আরবপুর হয়ে বুকভরা বাওড়ে গিয়ে পড়ে। কিন্তু দশপাকিয়া  গ্রামের মিজানুর রহমান, মৎসরাঙ্গা গ্রামের আব্দুল রইচ উদ্দীন, দেলোয়ার হোসেনসহ  কয়েকজন পানি প্রবাহের খাল  বন্ধ করে মাছ চাষের জন্য ভেড়িবাঁধ নির্মাণ করেছেন। ফলে উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের গোপিনাথপুর, বড়কুলি, দশপাখিয়া, রঘুনাথপুর, মৎস্যরাঙ্গা, বুড়িয়ান্দিয়া গ্রামের কয়েকশ বিঘা জমি পানির নিচে তলিয়ে আছে। এসব জমিতে এখন আমন ধানের চাষ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, এই সমস্যা সমাধানে গত বুধবার এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রকৌশলী এনামুল হকের কাছে একটি স্মারকলিপি দেন। নির্বাহী কর্মকর্তা সরেজমিনে দেখে দ্রুততার সাথে সমাধানের জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) নারায়ণ চন্দ্র পালকে  নির্দেশ দেন।কিন্তু তিনি গুরুত্বপূর্ণ এ বিষয়টি বেমালুম ভুলে গেছেন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) নারায়ণ চন্দ্র পাল বলেন, ‘এবিষয়ে ইউএনও মহোদয় কোনো কিছু বলেছেন কিনা আমার খেয়াল নেই। আপনারা আমার অফিসে আসেন। আমি ফাইল দেখে জানাবো।’

উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রকৌশলী এনামুল হক বলেন, ‘এলাকাবাসী গত বুধবার এ বিষয়ে আমার কাছে একটি স্মারকলিপি দিয়েছেন।  বিষয়টি ভূমি অফিসের হওয়ায় সমাধানের জন্য সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) বলা হয়েছে।’

স্বাআলো/ডিএম